ক্যালকুলেটর ফেরত চাওয়ায় মেরে রক্তাক্ত করলো ছাত্রলীগ

|

ক্যালকুলেটর ফেরত চাওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে মেরে রক্তাক্ত করেছে ছাত্রলীগের সলিমুল্লাহ মুসলিম (এসএম) হল শাখার নেতাকর্মীরা।

আহত শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র এহসান রফিক। এহসান অভিযোগ করেন, মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ওমর ফারুক প্রায় তিন মাস আগে তার কাছ থেকে ক্যালকুলেটর ধার নেন।

ওমর ফারুকের কাছে প্রায়ই ক্যালকুলেটর ফেরত চাইলে বলতেন ‘পরে দেব’। গতকাল মঙ্গলবার রাতে আবারও এহসান ক্যালকুলেটর চাইলে ওমর ফারুক এসএম হল ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও শিক্ষা গবেষণা ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী আরিফের মাধ্যমে এহসানকে টিভি রুমে ডেকে নিয়ে তাকে মারধর করে।

এসময় টিভিরুমে উপস্থিত ছিলেন গবেষণা ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী ও হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তানিম, উর্দু  বিভাগের শিক্ষার্থী শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনিম ইরতিজা শোভন ও পপুলেশন সাইন্স শিক্ষার্থী আবু তাহের।

প্রথমে তারা এহসানকে শিবির অপবাদ দিয়ে মোবাইল কেড়ে নিয়ে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট চেক করেন। কিন্তু ফেসবুকে সন্দেহজনক কিছুই না পেয়ে জোরপূর্বক শিবির স্বীকারোক্তি আদায় করতে বেদম মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন এহসান।

রড, লঠিসোটা দিয়ে মারধর করেন ছাত্রলীগের হল শাখার সহ-সম্পাদক ওমর ফারুক ও রুহুল আমিন, সদস্য সামিউল ইসলাম সামী, আহসান উল্লাহ, উপ সম্পাদক মেহেদী হাসান হিমেল।

এহসানের দাবি, হল সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেলের নির্দেশে মারধর করে তারই কক্ষে বুধবার দিনভর আটকে রাখা হয়। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে পালিয়ে আসেনে তিনি।

এ বিষয়ে সন্ধ্যায় মুঠোফোনে রাসেলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, তার (রাসেলের) রুমে আটকে রাখার বিষয়টি সত্য নয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আলম জোয়ারর্দার যমুনা টিভিকে বলেন, এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদনটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জমা দিলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply