‘বাবা বেঁচে থাকলে ক্ষমা করতেন’; আটক শিক্ষকের মুক্তি চেয়ে নাসিমের পুত্রবধূর স্ট্যাটাস

|

করোনা আক্রান্ত হয়ে সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে করা কটুক্তির জন্য ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে আটক শিক্ষকের মুক্তি চাইলেন তার পুত্রবধূ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাবরিনা সুলতানা চৌধুরী।

তিনি বলেন, বাবাকে হারানোর পর ফেসবুকে বিদ্রুপাত্মক স্ট্যাটাস দেখে মেজাজ হারিয়ে ফেলেছিলাম। আমি নিজেও ১৩ দিন আইসিইউতে ছিলাম। তাই উত্তেজিত হয়ে পরেছিলাম। তারপর ভাবলাম বাবা বেঁচে থাকলে ক্ষমা করে দিতেন, গ্রেফতার বা শাস্তি কিছুই চাইতেন না। তিনি এমন মানুষ ছিলেন।

ভীষণ মনোঃকষ্ট নিয়ে একটা পোস্ট দিয়েছিলাম নিজের বাবার অপমানে । তাতে গণতন্ত্র ব্যাহত হয়েছে। তারপর আমি নিজে চোখটা বন্ধ করে…

Gepostet von Sabrina Sultana Chowdhury am Freitag, 19. Juni 2020

তার স্ট্যাটাসটি হুবহুল তুলে ধরা হলো-

ভীষণ মনোঃকষ্ট নিয়ে একটা পোস্ট দিয়েছিলাম নিজের বাবার অপমানে। তাতে গণতন্ত্র ব্যাহত হয়েছে। তারপর আমি নিজে চোখটা বন্ধ করে অনেক ক্ষণ ভাবলাম যে বাবা থাকলে কি করতেন। উত্তরটা পেয়ে গেলাম। তিনি হাসতেন, বলতেন ক্ষমা করতে। গ্রেফতার বা শাস্তি কিছুই চাইতেন না। এরকমই মানুষ ছিলেন তিনি। আমি নিজেও কখনো পারিবারিক কিছু কখনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আনি নি। একটা ছবি পর্যন্ত না। এখন আসলে নিজে ১৩ দিন আইসিইউতে ছিলাম। বাবাকে হারালাম। তারপর এসব নিষ্ঠুর আচরণ। তাই উত্তেজিত হয়ে পড়েছিলাম। কোনো শাস্তি বা মামলা আমরা চাই না। এই আইনের বিরুদ্ধে আমি নিজেও দাঁড়িয়েছি। আর কোনো দলকানা মানুষও আমি নই। বাবা তাঁর শেষ সময় পর্যন্ত দেশের জন্যে কাজ করেছেন। তারপরও যদি তাঁর কোনো ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে আপনারা তাঁকে ক্ষমা করবেন। কন্যা হিসেবে আমি দোয়া চাই ওনার জন্যে। হিংসা বিদ্বেষ কখনো ভালো কিছু হতে দেয় না। সকল শিক্ষক মুক্তি পান, ভালো থাকুন। গণতন্ত্রের পক্ষে লড়াই করা মানুষটা যেনো জান্নাতবাসী হোন। আমাকেও ক্ষমা করবেন সাময়িক উত্তেজনার জন্যে। আমিও যেনো আমার সীমিত সামর্থ্য মানুষের পাশে থাকতে পারি। ভালো থাকবেন আপনারা।









Leave a reply