করোনায় সম্প্রীতির নজির, গির্জায় জুমা আদায়

|

করোনা মহামারির মধ্যে ধর্মীয় সম্প্রীতির অনন্য এক নজির তৈরি হলো জার্মানিতে। ছোট মসজিদে শারীরিক দূরত্ব রেখে জামাতের সুযোগ না থাকায়, এগিয়ে এসেছে প্রতিবেশী গির্জা। মুসলিম জনগোষ্ঠির জন্য খুলে দেয়া হয়েছে গির্জার দরজা। সেখানেই জুমাতুল বিদা আদায় করেন বার্লিনের অনেক মুসল্লি।

ধর্মীয় সম্প্রীতির অভূতপূর্ব এমন দৃশ্যের কারণ করোনা পরিস্থিতি। শারীরিক দূরত্বের বিধিনিষেধে স্থানীয় ছোটো মসজিদে জায়গা হচ্ছে না সব মুসল্লির; তাই জুমার জন্য, নিজেদের উপাসনালয় ছেড়ে দিয়েছে, গীর্জা কর্তৃপক্ষ। যেখানে দূরত্ব রক্ষা করেই, শুক্রবার নামাজ আদায়ের সুযোগ পেয়েছেন, অনেকে।

মার্থা লুথেরান গীর্জার যাজক মনিকা ম্যাথিয়াস বলেন, এখানে যা হয়েছে তা সকলের জন্যই আশির্বাদ। কমিউনিটি হিসেবে, করোনাকালীন সময়ে ভালো কিছু করার চিন্তা থেকেই এমন সিদ্ধান্ত নেই আমরা। যা সব পরিচয় ভুলিয়ে আমাদের আরো কাছে এনেছে।

গির্জায় জামাত হলেও, যতোটা সম্ভব ধর্মীয় আবহ বজায় রাখার চেষ্টা করেন মুসল্লিরা। শুরুতে অস্বস্তিতেও পড়েন অনেকে। তবে, এক ধর্মের প্রার্থনার জন্য আরেক ধর্মের উদারতাকেই বড় করে দেখছেন সবাই।

স্থানীয় এক মুসলিম বলেন, গির্জায় ঢুকেই সংগীত যন্ত্র ও ছবি টানানো দেখে একটু অন্যরকম লাগছিলো। মসজিদে তো এসব থাকে না। তবে ছোটখাটো এসব বিষয় বাদ দিলে, এ ঘরও তো সৃষ্টিকর্তার তৈরি। তাই, ইমাম যখন খুতবা শুরু করলেন, আশপাশের সবকিছু ভুলে গেছি।

স্থানীয় ইমামও সাদরেই গ্রহণ করেন গির্জায় নামাজ আদায়ের আমন্ত্রণ। তার মতে পবিত্র রমজানে জামাতে জুমা পড়তে পারাই বড় বিষয়।

ইমাম তাহা সাবরি বলেন, সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ এটি। করোনা মহামারির ভয়াবহ এ সংকট মানুষের ব্যবধান ঘুচিয়ে দিয়েছে। নামাজের পুরো সময়ে মনে হয়েছে আমি আল্লাহর ঘরেই ছিলাম।

লম্বা লকডাউন শেষে, এ মাসে ধর্মীয় উপাসনালয় খুলে দেয়া হয় জার্মানিতে। কিন্তু মসজিদে জামাতের জন্য দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনায়, স্থান সংকুলান নিয়ে, বিপাকে পড়ে, বার্লিনের মুসলিম জনগোষ্ঠি।









Leave a reply