ঝালকাঠিতে হত্যার বিচার চেয়ে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

|

ঝালকাঠির রাজাপুরে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে তার স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার বিকেলে ওই ইউপি সদস্যের বিচার দাবিতে মরদেহ নিয়ে ঝালকাঠি প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ করেছে মৃতের স্বজনরা। পরে পুলিশ বিচারের আশ্বাস দিলে মরদেহ তার বাবার বাড়িতে দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে লাশ বাড়িতে নিয়ে গোসল করানোর সময় মৃত রুনা লায়লা (২৬) এর শরীরের বিভিন্ন আঘাতের চিহ্ন দেখতে পায় স্বজনারা। পরে তাকে দাফন না করে গ্রামের শত শত মানুষ লাশ নিয়ে ঝালকাঠিতে ছুটে আসে। মৃতের স্বামী কুদ্দুসের বিচার দাবিতে ঝালকাঠি প্রেসক্লাবেব সামনে বিক্ষোভ করতে থাকে।

পুলিশ ও মৃতের স্বজনরা জানায়, রুনা লায়লা রাজাপুর উপজেলার শুক্তাগড় ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ কুদ্দুস হোসেনের স্ত্রী। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে রাজাপুরের নারিকেল বাড়িয়া গ্রামে স্বামীর বাড়ির নিজ শয়ন কক্ষে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। রুনা লায়লা দুই সন্তানের মা এবং একই উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের ডহরশংকর এলাকার মোঃ আমির হোসেন গাজীর মেয়ে।

মৃতের স্বজনরা জানায়, “দীর্ঘ দিন ধরে ইউপি সদস্য কুদ্দুস রুনা লায়লাকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছে। বৃহস্পতিবারও তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়।”

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার রাতেই রাজাপুর থানা পুলিশ একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছে। রুনা লায়লার লাশ ময়না তদন্ত শেষে বাবার কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।









Leave a reply