করোনায় অনলাইন গেমেও এখন মাস্কের দেখা

|

করোনায় অনলাইন গেমেও এখন মাস্কের দেখা

অনলাইন গেমেও এখন মাস্কের দেখা

করোনা সংক্রমণ এড়াতে সাধারণ জনগন বাধ্য হয়েছেন মাস্ককে আপন করে নিতে। এবার সেই মাস্ক ছেয়ে গেছে অনলাইন গেমেও। ছোটদের জন্য তৈরি বেশ কিছু গেমে এখন যোগ হয়েছে নতুন নিয়ম— মাস্ক। কোথাও গেম শুরু করার আগে নিজের পছন্দের চরিত্রের মুখে বাঁধতে হচ্ছে মাস্ক আবার কোথাও খেলার প্রধান কুশীলবেরা সকলেই হাজির হচ্ছে মাস্ক পরে।

লকডাউনের জেরে ঘরবন্দি খুদেদের অবস্থাই দেখাচ্ছে ‘মাই হর্স স্টোরিজ গেম’। সেখানে একটি ফার্মে পছন্দের ঘোড়ায় চড়া শিখতে সাজতে হয় কাউবয়। তার পরে সেই ঘোড়া নিয়েই বাধাবিপত্তি পেরিয়ে বিজয়ী হওয়ার লক্ষ্যে এগোনো যায়। কিন্তু কিছু দিন হল এই গেমে যোগ হয়েছে নতুন নিয়ম। খেলতে গেলে প্রথমেই নিজের চরিত্রের মুখ ঢাকতে হবে মাস্কে।

করোনার যুগে এ ভাবেই খুদেদের প্রিয় গেমে ক্রমশ জায়গা করে নিয়েছে মাস্ক। গেমে তাদের পছন্দের নায়ক-নায়িকা এমনকি সুপারহিরোদের মুখও এখন মাস্কে ঢাকা। গেম খেলতে গেলেই সামনে আসছে নতুন ‘অপশন’— মাস্ক। পছন্দের মাস্ক চরিত্রের মুখে লাগিয়ে নিলে তবেই এগোনো পরবর্তী ধাপে। হিপহপ, জ্যাজ বা ব্যালে নাচের জন্য ‘ডান্স স্কুল স্টোরিজ’, ‘আইস স্কেটিং’ বা ‘প্রিটি ব্যালেরিনা’র মতো গেমের চরিত্রেরাও আজ মুখ ঢেকেছে মাস্কে।

হিপহপ ব্যাটেল গার্লস ভার্সেস বয়জ ডান্স ক্ল্যাশ’-গেমে নাচের লড়াইয়ে নামতে গেলেও চরিত্রদের মুখে বেঁধে দিতে হচ্ছে মাস্ক। আবার ডিজাইনিং শিখে সটান ফ্যাশন র‌্যাম্পে নামার জন্য ‘সুপার স্টাইলিস্ট’-গেমেও মডেলদের মুখ থাকছে মাস্কের আড়ালেই। ‘চিয়ারলিডার ডান্স অব চ্যাম্পিয়নশিপে’ নামতে গেলে আবার শারীরচর্চার জন্য যেতে হয় জিমে। সেখানেও দেখা যাচ্ছে, জিম থেকে ডান্স ফ্লোর— মাস্ক পরলে তবেই মিলছে ছাড়পত্র।

এদিকে মোবাইল গেম তৈরির একটি সংস্থা জানাচ্ছে, অনলাইনে গেমকে আরও প্রাণবন্ত করার জন্য নিয়মিত তা ‘আপডেট’ করা হয়ে থাকে। এবার তাই ছোটদের সংক্রমণ নিয়ে জানাতে এবং মাস্কের কার্যকারিতা শেখাতেই এই উদ্যোগ। এই ভাবনার সঙ্গে একমত পোষণ করে ‘ইন্ডিয়ান সাইকায়াট্রিক সোসাইটি’র সহ-সভাপতি গৌতম সাহা বলছেন, “শিশুমনে স্টোরি বা গেমের বড় প্রভাব পড়ে। তাই জনপ্রিয়তার জন্য সংস্থাগুলি যেমন গেমকে প্রাণবন্ত করছে, তেমনই এর মাধ্যমে ছোটরাও মাস্কের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বুঝতে শিখছে।”

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা









Leave a reply