বিলাইছড়িতে বৌদ্ধ বিহারে আগুন: জেএসএসকে দায়ী

|

আগুনে পুড়ে যাওয়া বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র

রাঙামাটি প্রতিনিধি:

রাঙামাটির দুর্গম অঞ্চল বিলাইছড়ি উপজেলায় ড. দীপংকর মহাথেরো পরিচালিত ধুপশীল আন্তর্জাতিক বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র ও আশপাশের কয়েকটি বসত বাড়ি আগুনে পুড়ে গিয়েছে। ঘটনাটির জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দল জেএসএসকে দায়ী করা হচ্ছে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, বিলাইছড়ি উপজেলাধীন ১নং বিলাইছড়ি ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ধুপশীলপাড়া এলাকায় ড. দীপংকর মহাথেরো ভান্তে ধুপশীল আর্ন্তজাতিক বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র পরিচালনা করে আসছেন। শুক্রবার গভীর রাতে ১০/১৫ জনের একটি সন্ত্রাসী দল এসে ভাবনা কেন্দ্রে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং একজন সেবককে মারধর বের করে দেয়।

আগুনে ভাবনা কেন্দ্রটি ছাড়াও কয়েকটি বসতঘর পুড়ে যায়। আগুন দেবার সময় সন্ত্রাসীদের হুমকিতে আশপাশের কয়েকটি বসত ঘরের লোকজন সরে যায়। আগুন দিয়ে ভাবনা কেন্দ্র পোড়ানোর পর সন্ত্রাসী দল এলাকা ত্যাগ করে। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অর্ধকোটি টাকার বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, গত ২০১৪ সাল থেকে বছর ধরে সেখানে দীপংকর মহাথেরো (ধুতাংগ ভান্তে) আন্তর্জাতিক ভাবনা কেন্দ্র স্থাপনসহ নানা ধর্মীয় কর্মকাণ্ড করে আসছিলেন। কিন্তু সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় আঞ্চলিক দল জেএসএস। এক পর্যায়ে মহাথেরোকে কয়েক দফায় এলাকা ছাড়ারও হুমকি দেয় এবং এলাকায় পানের বাগানসহ বিভিন্ন জায়গায় আগুন দেয়। পরে মহাথেরো ২০১৮ সালের দিকে বান্দরবান চলে গেলেও তার স্থাপিত ভাবনা কেন্দ্রসহ অনান্য কর্মকাণ্ড স্থানীয়রা পরিচালনা করে আসছে।

কিন্তু কিছুদিন ধরে জেএসএস’র বিলাইছড়ি উপজেলার সাধারণ সম্পাদক রাহুল চাকমা এই ভাবনা কেন্দ্র বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দিয়ে আসছিলেন। এলাকার লোকজন ও মহাথেরোর শিষ্যরা কথা না শোনায় এই ভাবনা কেন্দ্রে আগুন দেওয়ার পেছনে জেএসএস’র হাত রয়েছে বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

এছাড়া বাঙালি ভান্তে হিসেবে স্থানীয় চাঁদবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড জেএসএসকে (মূল) সহযোগিতা না করায় পূর্ব রোষানলের জেরে উক্ত ঘটনা ঘটাতে পারে বলে জানায় এলাকাবাসী।

এদিকে বান্দরবানে অবস্থানরত দীপংকর ভান্তে ঘটনার জন্য জেএসএসকে দায়ী করে বলেছেন, জেএসএসের সন্ত্রাসীরা তার ভাবনা কেন্দ্র আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে। তবে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

বিলাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পারভেজ আলী জানান, ঘটনার খবর শুনে পুলিশ এবং সেনাবাহিনী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। গতকাল শনিবার বিলাইছড়ি থানায় বিদ্যা সাগর তংচঙ্গ্যা বিহারে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করে অগ্নিসংযোগ করার অপরাধে অজ্ঞাতনামা ১০/১৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply