ঘূর্ণিঝড় আম্পানের শঙ্কার মধ্যে দিঘা সৈকতে ফেনা রহস্য!

|

ঘূর্ণিঝড় আমফানের শঙ্কার মধ্যে দিঘা সৈকতে ফেনা ঘিরে রহস্য!

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই নতুন আতঙ্ক। ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট একটি গভীর নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছ বলে পূর্বাভাস আবহাওয়াবিদদের। এই নিয়ে স্বভাবতই ভারত-বাংলাদেশের মানুষ উদ্বিগ্ন। এর মধ্যে সমুদ্র উপকূলের ফেনা নিয়ে সাড়া পড়ে গেছে পশ্চিমবঙ্গের দিঘায়।

আনন্দবাজার লিখেছে, দূর থেকে দেখলে মনে হবে বরফ পড়ে আছে। ঠাণ্ডা ঝোড়ো হাওয়ার মধ্যে মনে পড়বে দার্জিলিঙের কথা। কিন্তু একটু মনোযোগ দিয়ে সামনে গিয়ে দেখলে, বোঝা যাবে ওগুলো বরফ নয়। আসলে সমুদ্রের ফেনা! ধরনের সাদা সাদা সমুদ্র-ফেনা দেখা দেওয়ায় রীতিমতো সাড়া পড়ে গিয়েছে এলাকায়।

ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে এই ফেনার কোনও সম্পর্ক আছে কি না বা এটা কোনও অশনিসঙ্কেত কি না, তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উপকূলবর্তী স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে। কৌতূহল চাপতে না পেরে অনেকেই আবার রাতেই দিঘার সমুদ্রে এই দৃশ্য দেখতে চলে যান।

তবে ভারতের সমুদ্র বিজ্ঞানী আনন্দদেব মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এই ঘটনা একেবারেই স্বাভাবিক। এ নিয়ে ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই। তিনি বলেন, লকডাউনের ফলে সমুদ্র এখন অনেকটা দূষণমুক্ত। আগে দূষণের জন্য সমুদ্রের তলদেশের সেডিমেন্ট সমুদ্রের জলের তলার দিকেই থাকত। কিন্তু এখন দূষণ না থাকায় সেই সব উপাদান জলের উপরের স্তরের দিকে চলে আসছে। আর আম্পানের প্রভাবে সমুদ্রের উপরে বাতাসের গতিবেগ এখন অনেক বেড়েছে। যার ফলে সেই বাতাসের ধাক্কায় সমুদ্রের জলে উৎপন্ন হচ্ছে ফেনা। যা আছড়ে পড়ছে উপকূলে।

করোনাভাইরাসের কারণে পৃথিবীর দূষণ উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেছে। ফলে, প্রকৃতি তার রূপ মেলে ধরেছে। অনভ্যস্ত হয়ে ওঠা মানুষ মাঝে মাঝেই আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে।









Leave a reply