পাসপোর্ট অফিসে ৫৫ ভাগ মানুষই দুর্নীতির শিকার!

|

পাসপোর্ট অফিসে গড়ে ৫৫ ভাগ মানুষই দুর্নীতির শিকার হন। আর পুলিশ ভেরিফিকেশনের ক্ষেত্রে ৭৬ শতাংশের বেশি আবেদনকারীকে ঘুষ দিতে হয়। সম্প্রতি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআইবি)’র এক গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। এই অবস্থায় পুলিশ ভেরিফিকেশন তুলে দেয়াসহ ১২ দফা সুপারিশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ভ্রমণে বিদেশ যেতে প্রয়োজন পাসপোর্ট, চাকরির ক্ষেত্রে অনেক সময় এটির প্রয়োজন পড়ে। অথচ, এই নাগরিক পরিচয়পত্রটি পেতে বাংলাদেশিদের পোহাতে হয় নানা ঝক্কি ঝামেলা। টিআইবির গবেষণা প্রতিবেদনে বলছে, পাসপোর্ট পেতে অর্ধেকেরও বেশি মানুষ দুর্নীতির শিকার হন। তাদের প্রতিবেদন বলছে, দেশের সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত পাসপোর্ট অফিস সিলেটে। এটিসহ সব অফিসে আছে ঘুষ বাণিজ্য, আছে দালালের দৌরাত্ম্য। টিআইবি’র গবেষক শাহনূর রহমান জানান, গবেষণায় দেখা গেছে দালালের মাধ্যমে ৭২ শতাংশ মানুষ আর দালাল ছাড়া ৭৫ শতাংশ মানুষ যথাসময়ে পাসপোর্ট পেয়েছেন।

গবেষণায় দেখা গেছে, ভেরিফিকেশনের নামে বিশাল অঙ্কের টাকা ঘুষ নিচ্ছে পুলিশ। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে পুলিশ ভেরিফকেশন বন্ধ, পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর করাসহ ১২ দফা সুপারিশ করেছে টিআইবি।

২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৭ সালের মে মাস পর্যন্ত, রাজধানীসহ দেশের ২৬টি আঞ্চলিক অফিসের তথ্য সংগ্রহ করে টিআইবি। তার ভিত্তিতে তৈরি হয়েছে প্রতিবেদনটি। ।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply