সৌদি আরবের একাধিক শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

|

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদসহ একাধিক শহরে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে। এতে দুই বেসামরিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটি। শনিবার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে। তবে তাদের দাবি, রিয়াদ এসব হামলা প্রতিহত করতে সমর্থ হয়েছে।

এখন পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠী এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, স্থানীয় বাসিন্দারা একাধিক বিস্ফোরণের কথা নিশ্চিত করেছেন। বিস্ফোরণের পর উত্তরাঞ্চলীয় কয়েকটি জেলায় জরুরি সাইরেন দেওয়া হয়।

হামলার জন্য ইয়েমেনের হুতিদের দায়ী করে সৌদি সরকার জানিয়েছে, তাদের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সফলভাবে ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ধ্বংস করেছে। রিয়াদ ও ইয়েমেন সংলগ্ন শহর লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়। এর আগেও হুতি অসংখ্যবার সৌদির অভ্যন্তরে ড্রোন, রকেট ও শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে।

তবে গত সেপ্টেম্বর থেকে এসব হামলা থেকে দূরে ছিল সংগঠনটি। গত বছর সৌদি আরবের তেলক্ষেত্রে ভয়াবহ ড্রোন হামলা চালায় হুতি। এতে দেশটির তেল উৎপাদন অর্ধেকে নেমে এসেছিল। এরপর থেকেই আর বড় কোনো হামলা চালায়নি হুতিরা।

২০১৫ সালে ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট মনসুর হাদিকে উচ্ছেদ করে রাজধানী সানা দখলে নেয় হুতি বিদ্রোহীরা। পালিয়ে রিয়াদে আশ্রয় নেন সৌদি সমর্থিত হাদি। ২০১৫ সালের মার্চে হুতি’র বিরুদ্ধে মিত্রদের নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় ‘অপারেশন ডিসাইসিভ স্টর্ম’ নামে সামরিক অভিযান শুরু করে রিয়াদ। এ অভিযানে এখন পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ ১০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। এর প্রতিশোধ নিতে হুতিরা সৌদি আরবে বিভিন্ন সময় হামলার চেষ্টা চালিয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply