সেই তিন প্রবীণের কাছে ক্ষমা চাইলেন ইউএনও, দেয়া হয়েছে খাবারও

|

যশোরে বয়োজ্যেষ্ঠ তিন ব্যক্তির কাছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষমা চেয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ শরিফী। এসময় নির্দেশ মতো তাদের খাবারও সরবরাহ করা হয়। করোনাকালীন ছুটিতে খাবার সরবরাহ অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

করোনা সতর্ককতায় শুক্রবার মাস্ক না পরে বের হওয়ার অপরাধে তিন প্রবীণ ব্যক্তিকে অপমান করেন যশোরের মনিরামপুর উপজেলার এসি ল্যান্ড সাইয়েমা হাসান। ছবি মোবাইলে ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেন তিনি নিজেই। উপজেলার ওয়েবসাইটেও দেওয়া হয় সেই ছবি।

এরই প্রেক্ষিতে প্রত্যাহার করা হয় বিতর্কিত এই কর্মকর্তাকে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন যমুনা টেলিভিশনকে জানান, অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার আচরণ মর্মাহত করেছে প্রশাসনকে। করোনা পরিস্থিতিতে মাঠ পর্যায়ের সব কর্মকর্তাদের চাকরিবিধি মেনে চলার নির্দেশনাও দেন প্রতিমন্ত্রী।

এদিকে, বিতর্কিত ওই নারী কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করায় স্বস্তি প্রকাশ করেন স্থানীয়রা। করোনা প্রতিরোধে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের না হতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply