বিশ্বে ১শ’ কোটির বেশি মানুষ গৃহবন্দি

|

বিশ্বের প্রায় ১৯০টি দেশে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের কারণে ১শ’ কোটির বেশি মানুষ গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছেন। একের পর এক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে বিভিন্ন দেশ। ইতোমধ্যে ৩৫টি দেশ লকডাউনে গেছে। নতুন করে পুরো দেশে লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

ভারতও পুরোপুরি লকডাউনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। সৌদি আরবে সকাল-সন্ধ্যা কারফিউ ঘোষণা করেছেন বাদশাহ সালমান। বিদেশি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে হংকং। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ১৬ হাজার ছাড়িয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন সাড়ে তিন লাখ।

তবে আশার কথা- সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন এক লাখেরও বেশি মানুষ। মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে চীন-ইতালির পর ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে ৪১ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। ইতোমধ্যে মারা গেছেন ৫০৪ জন। এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, করোনা প্রতিরোধে শুধু লকডাউনই যথেষ্ট নয়। এ জন্য প্রয়োজন আরও শক্তিশালী জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা। রয়টার্স, বিবিসি, এএফপিসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর।

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারস ডট ইনফোর হিসাব অনুযায়ী- বাংলাদেশ সময় সোমবার রাত ৯টা পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় ১৬ হাজার ৩১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৭২ হাজার ৫৭২। চিকিৎসা গ্রহণের পর সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ১ হাজার ৩৭৩ জন।

এদিন বিভিন্ন দেশে মারা গেছেন ১৬৭৫ জন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে ইতালিতে- ৬০১ জন মারা গেছেন। এছাড়া স্পেনে ৪৩৫, ফ্রান্সে ১৮৬, ইরানে ১২৭, যুক্তরাষ্ট্রে ৮৫, ব্রিটেনে ৫৪, জার্মানিতে ২৪ ও বেলজিয়ামে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সৌদি আরবে সকাল-সন্ধ্যা কারফিউ : সৌদি আরবে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সোমবার থেকে দেশজুড়ে সকাল-সন্ধ্যা কারফিউ জারির ঘোষণা দিয়েছেন বাদশাহ সালমান। রাজকীয় আদেশের বরাত দিয়ে সৌদি প্রেস এজেন্সি জানায়, সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২১ দিন কারফিউ বলবৎ থাকবে।

দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এখন ৫১১ জন। গালফ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে এখন সৌদি আরবেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সর্বোচ্চ। তবে দেশটিতে এখন পর্যন্ত কেউ এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাননি। সৌদির রাজকীয় আদেশে বলা হয়, আইনৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা কারফিউর বিধিনিষেধের আওতায় আসবেন না।

সৌদির বাদশাহ সালমান এরই মধ্যে সতর্ক করেছেন, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে আরও কঠিন যুদ্ধ সামনে রয়েছে। দেশটিতে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সিনেমা, শপিং মল, রেস্তোরাঁ বন্ধ। ২ সপ্তাহের জন্য আন্তর্জাতিক সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। ওমরা ও ট্যুরিস্ট ভিসাও স্থগিত। করোনার নেতিবাচক প্রভাব ছাড়াও বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ায় অনেকটা উভয় সংকটে পড়েছে দেশটি।

চীন ইতালির পর যুক্তরাষ্ট্র : করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাম। আক্রান্তের সংখ্যার দিক থেকে দেশটি এখন চীন ও ইতালির পরই অবস্থান করছে। সোমবার পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ৪১ হাজার ৫৫৯ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮০২৩ জন। আগের দিন রোববার একদিনে আক্রান্ত হয়েছিলেন সাড়ে ১৪ হাজার। যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত ভাইরাসটির কারণে ৫০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার মারা গেছেন ৮৫ জন। মৃতের সংখ্যা দেশটিতে তুলনামূলক কম হলেও আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি।

সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমানে ১৭ কোটি মানুষ ঘরে অবরুদ্ধ। ৮১ হাজার ৯৩ আক্রান্ত নিয়ে সবার উপরে আছে চীন। দেশটিতে করোনার উৎপত্তি হলেও কমে এসেছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯ জন।

মারা গেছেন ৯ জন। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ইতালি। করোনাভাইরাসের আগ্রাসী থাবায় দেশটি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ৯২৭ জন। বিশ্বে সর্বাধিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে ইতালিতে। দেশটিতে মারা গেছেন ৬ হাজার ৭৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৬০১ জন।

লকডাউন নিউজিল্যান্ড : নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সারা দেশে লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন। সোমবার তিনি বলেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পুরো দেশে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি হবে, অপ্রয়োজনীয় সব সেবা, স্কুল ও সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ করা হবে।

আর্ডার্ন বলেন, এ পদেক্ষেপে বার, ক্যাফে, রেস্টুরেন্ট এবং সিনেমা হলও বন্ধ হয়ে যাবে। তবে সুপার মার্কেট এবং ফার্মেসি চালু থাকবে। তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ড এখন স্বেচ্ছা আইসোলেশনে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০২ জন; আক্রান্তদের সবাই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত কারও প্রাণহানি ঘটেনি।

প্রাসাদ ছাড়লেন রানী এলিজাবেথ : ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথ লন্ডনের বাসভবন বাকিংহাম প্রাসাদে থাকাকালে সেখানকার এক রাজকর্মীর দেহে করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে বলে খবর হয়েছে। এরপর সতর্কতা হিসেবে বৃহস্পতিবার ৯৩ বছর বয়সী রানীকে উইন্ডসর দুর্গে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

এর আগে তার সব ধরনের কর্মসূচি বাতিল করা হয় এবং তিনি সুস্থ আছেন বলে জানানো হয়েছে। ওই রাজকর্মী রানীর কতটা কাছাকাছি ছিলেন তা জানা যায়নি। কিন্তু তারপর থেকে বাকিংহাম প্রাসাদের অন্য যে কর্মীরা ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের সবাই স্বেচ্ছা আইসোলেশনে আছেন বলে জানা গেছে। যুক্তরাজ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসে ৫ হাজার ৭৪৫ জন আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা ২৮২ জনে দাঁড়িয়েছে বলে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে।

কলম্বিয়ায় কারাগারে দাঙ্গায় নিহত ২৩ : কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতার সবচেয়ে বড় কারাগারে করোনাভাইরাস নিয়ে উত্তেজনা থেকে সৃষ্ট দাঙ্গায় অন্তত ২৩ জন নিহত হয়েছে। রোববারের এ দাঙ্গাকে করোনাভাইরাস নিয়ে বাড়তে থাকা উদ্বেগে জেল ভাঙার সম্মিলিত প্রচেষ্টা বলে উল্লেখ করেছে দেশটির সরকার।

লা মোদেলো কারাগারে দাঙ্গা চলাকালে ৮৩ বন্দি আহত হয়েছে বলে কলম্বিয়ার বিচারমন্ত্রী মার্গারিটা কাবেলো জানিয়েছেন। মন্ত্রণালয় ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বলেও জানান তিনি।

ফিলিপাইনে তিন ও ফ্রান্সে এক চিকিৎসকের মৃত্যু : চীনের সীমানা অতিক্রম করে বিশ্বের প্রায় ১৯০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। যেসব দেশে করোনা ছড়িয়েছে সেগুলোর তালিকায় ফিলিপাইনের নামও রয়েছে। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইতোমধ্যে তিনজন চিকিৎসক মারা গেছেন।

অপর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থার মধ্যেই করোনা মোকাবেলায় কাজ করতে হচ্ছে ফিলিপাইনের চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের। ফলে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে তারাও করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এ ব্যাপারে ফিলিপাইন মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, রাজধানী ম্যানিলার তিনটি পৃথক হাসপাতালে দায়িত্বরত অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হন ওই তিন চিকিৎসক। এদিকে ফ্রান্সেও এক চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে ট্রেন সেবা ফ্রি করে দিয়েছে দেশটির সরকার।

হংকংয়ে সব ধরনের পর্যটক প্রবেশ নিষিদ্ধ : ২ সপ্তাহের জন্য সব ধরনের পর্যটক প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে হংকং। বিদেশ ফেরত নাগরিকদের মাধ্যমে ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলটি। সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম জানান, ২৫ মার্চ থেকে ১৪ দিন শহরটিতে সব ধরনের পর্যটক প্রবেশ বন্ধ থাকবে। করোনার মহামারী প্রতিরোধে আরও বিস্তৃত ব্যবস্থা নেয়াসহ কোয়ারেন্টিন নির্দেশনা অমান্যকারীদের কঠোর সাজার ঘোষণা দেন তিনি।

এদিন হংকংজুড়ে অন্তত ৮ হাজার ৬শ’ রেস্টুরেন্ট, বার, ক্লাবসহ মদ বিক্রির লাইসেন্সধারী সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে আইন সংশোধনেরও কথা জানান ক্যারি লাম। চীনের মূল ভূখণ্ডের একদম কাছে হলেও করোনা প্রতিরোধে দারুণ সফলতা দেখাচ্ছে হংকং। শহরটিতে এ পর্যন্ত ৩১৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, এদের মধ্যে মারা গেছেন চারজন।

উহানে পঞ্চম দিন : বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ভয়াবহ করোনাভাইরাস। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের (কোভিড-১৯) উৎপত্তিস্থল চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানকে যেন নরক বানিয়েছিল। সেই উহানেই টানা পঞ্চম দিনের মতো নতুন কোনো আক্রান্ত রোগী পাওয়া যায়নি। এ কারণে সেখানে লকডাউন শিথিল করেছে চীন সরকার।

সিরিয়ায় প্রথম শনাক্ত গাজায় প্রথম মৃত্যু : মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ সিরিয়ায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। সিরিয়ার স্বাস্থ্য দফতর এ তথ্য জানিয়েছে। যিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি একজন নারী। তার বয়স ২০। সিরিয়ায় চিকিৎসা সরঞ্জাম ও চিকিৎসক পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে তুরস্ক। এদিকে গাজায় রোববার যে দু’জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিলেন তাদের একজন সোমবার মারা গেছেন।

শুধু ‘লকডাউন’ যথেষ্ট নয় -ডব্লিউএইচও : কোভিড-১৯ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য শুধু সামাজিক লকডাউন পদ্ধতি যথেষ্ট নয় বলে মন্তব্য করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বিশেষজ্ঞরা। ভাইরাসটি নির্মূলে আরো শক্তিশালী জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়ে সংস্থাটি।

বিবিসির একটি অনুষ্ঠানে দেয়া সাক্ষাৎকারের বরাত দিয়ে আল জাজিরার খবরে এ তথ্য জানানো হয়। ডব্লিউএইচওর বিশেষজ্ঞ মাইক রিয়ান বলেছেন, নভেল করোনা ভাইরাস নির্মূল করার জন্য প্রকৃতপক্ষে যেটা দরকার তা হল- অসুস্থ ব্যক্তি, ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তিকে খুঁজে বের করতে হবে এবং এদের সঙ্গে যোগ করে এদেরকে বিচ্ছিন্ন (আইসোলেট) করে রাখতে হবে।

তিনি বলেন, যদি আমরা এখনই শক্তিশালী জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা গ্রহণ না করি তাহলে সীমাবদ্ধতা কিংবা লকডাউনের মতো নির্দেশনাগুলো তুলে নিলে রোগটি আবারও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়বে।









Leave a reply