ভৈরবে ইতালি প্রবাসীর মৃত্যু, বিশেষ ব্যবস্থায় লাশ দাফন

|

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
ভৈরবে এক ইতালি প্রবাসীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রোববার স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে রাত সাড়ে ১০ টায় এই প্রবাসী মৃত্যুবরণ করেন। প্রবাসীর বয়স ৬৫ । শ্বাসকষ্ট ও জ্বর দেখা দিলে পরিবারের সদস্যরা তাকে রোববার সন্ধ্যায় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়।

এই প্রবাসী গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ইতালি থেকে দেশের বাড়িতে ফিরেছেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। হাসপাতালের ডাক্তাররা দেখে আইসোলেসনে নিয়ে যেতে পরামর্শ দেন। পরে রাত সাড়ে ১০ টায় এই হাসপাতালে প্রবাসী মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর পরিবারের সদস্যরা রাতেই তার লাশ শহরের বাসায় নিয়ে যায়। খবর পেয়ে রাতেই করোনাভাইরাস কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা ও সদস্য সচিব উপজেলা স্বাস্হ্য কর্মকর্তা ডাঃ বুলবুল আহমেদ এবং থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) বাহালুল খাঁন বাহার নিহতের বাড়িতে যান এবং দুটি হাসপাতাল ও তার বাড়িসহ আশেপাশের ১০ বাড়িতে লোক সমাগম সীমিত করে দেয়। এরপর ঘটনাটি রাতে জেলা প্রশাসনসহ ঢাকায় আইইডিসিআরকে জানানো হয়। খবর পেয়ে ঢাকা থেকে আইইডিসিআর কর্মীরা সোমবার সকালে ভৈরবে প্রবাসীর বাড়িতে আসেন। এসময় তারা নিহতের শরীরে করোনাভাইরাস আছে কিনা তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় চলে যান।

তারপর স্হানীয় প্রশাসন ও পুলিশের উদ্দ্যোগে বিশেষ ব্যবস্হায় লাশটি পলিথিং মুড়িয়ে সীলগালা করে দেন। ঘটনার সময় প্রশাসনের ৪/৫ জন কর্মকর্তা ও তার পরিবারের সদস্যরা ছাড়া বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশী বা গ্রামের কোন লোকজন উপস্থিত ছিলনা। তারপর বিশেষ নিরাপত্তায় দুপুর সাড়ে ১২ টায় শহরের পৌর কবরস্হানে দাফন করা হয়।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডাক্তার বুলবুল আহমেদ জানান, নিহত প্রবাসী করোনাভাইরাসে মুত্যুবরণ করেছে কিনা তা আমরা জানিনা। তবে সন্দেহজনকভাবে তার ভাইরাস পরীক্ষার জন্য ঢাকার আইইডিসিআর কর্মীদের খবর দিলে তারা সোমবার সকালে ভৈরব আসে। এসময় তারা নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় নিয়ে যায়। পরে বিশেষ ব্যবস্হায় তার লাশ পৌর কবরস্হানে দাফন করা হয়। তার শরীরে ভাইরাস ছিল কিনা তা পরীক্ষা শেষ হলে পরবর্তীতে ঢাকা থেকে জানানো হবে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি) হিমাদ্রি খিসা জানান, মানুষের জীবনের নিরাপত্তার কথা ভেবে দুটি হাসপাতাল ও নিহতের বাড়িসহ প্রতিবেশীর ১০ টি বাড়িতে লোক সমাগম সীমিত করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার নির্দেশে আমি এই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।









Leave a reply