করোনা মোকাবেলায় সচেতনতা ছাপিয়ে গ্রাস করছে আতঙ্ক

|

করোনা মোকাবেলায় সচেতনতা ছাপিয়ে গ্রাস করছে আতঙ্ক। চিকিৎসকরা বলছেন, করোনা মরণব্যাধি নয় অতিমাত্রায় ছোঁয়াচে। তাই মোকাবেলায় জরুরি সচেতনতা। অতিমাত্রায় মৃত্যু আতঙ্ক একসময় মানসিক সমস্যায় পরিণত হতে পারে বলেও শঙ্কা মনোচিকিৎসকের।

করোনার কারণে নিরাপত্তার স্বার্থে ঘরে বসে দাপ্তরিক কাজ করছে অনেক প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা। ব্যক্তি পর্যায়েও কেউ কেউ আছেন সেচ্ছা সঙ্গনিরোধে। মৃত্য ভয়ের সঙ্গে যোগ হয়েছে স্বাভাবিক জীবন-জীবিকার আতঙ্ক।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ বলেন, সতর্ক থাকলেই করোনা থেকে নিস্তার পাওয়া সম্ভব। এ রোগে আক্রান্ত ৮০-৯০ শতাংশই সুস্থ হয়ে উঠছেন।

তবে সমাজবিজ্ঞানীরা বলছেন, আতঙ্ক কোন সমাধান আনবে না।

সমাজবিজ্ঞানী ড. নেহাল করিম বলেন, গণমাধ্যমে প্রচারিত নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে শুধু আতঙ্কিত হলেই কোন সমাধান হবেনা বরং সতর্ক থাকতে হবে এবং নিয়ম মেনে চলতে হবে।

এদিকে অতিমাত্রায় আতঙ্কের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে ভবিষ্যত জীবনেও। মনোচিকিৎসকরা বলছেন, সচেতনতার চেয়ে আতঙ্কের প্রাধান্যে, শারিরীকভাবে দুর্বল হয় ব্যক্তি। আর তখন ঝুঁকি বাড়ে ভাইরাস সংক্রমনের।

ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট জহির উদ্দিন বলেন, আতঙ্ক আরো খারাপ অবস্থা ডেকে আনতে পারে। আতঙ্কিত হয়ে অনেকেই ব্রেকডাউনের শিকার হয়ে অসুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। সুতরাং আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন থাকতে হবে।

আতঙ্ক এড়াতে ভবিষ্যত বাদ দিয়ে বর্তমানে সচেতনভাবে ভাইরাসমুক্ত থাকা নিয়ে ব্যস্ত থাকার পরামর্শ মনোচিকিৎসকদের।









Leave a reply