সিলেটে মৃতের পরিবারকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা

|

সিলেটে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে লন্ডন ফেরত নারীর মৃত্যুর পর তার পরিবারকে বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসন তাদেরকে এই নির্দেশনা দেয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ আবুল কালাম।

আবুল কালাম জানান, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বাসায় পাঠিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে মারা যাওয়া নারীর পরিবারের সবাইকে বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এর আগে রোববার ভোররাত ৪টার দিকে লন্ডন ফেরত এই নারী নগরীর সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে আইসোলেশনে ইউনিটে মারা যান। ৬১ বছর বয়স্ক ওই নারী গত ৪ মার্চ লন্ডন থেকে সিলেট ফেরেন। এরপর ১০ দিন ধরে জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন তিনি। গত ২০ মার্চ শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে ভর্তি হন ওই নারী।

অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে আইসোলেশনে রেখেছিলেন চিকিৎসকরা। রোববার আইইডিসিআরের প্রতিনিধিদল সিলেটে এসে তার রক্তের নমুনা সংগ্রহ করার কথা ছিলো বলে জানিয়েছেন সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল।

মারা যাওয়ার আগে তার রক্ত পরীক্ষা করা না গেলেও নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত কি না তা নিশ্চিত হতে দাফনের আগে মৃত ব্যক্তির মুখের লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

এরপর রোববার দুপুর দেড়টার দিকে কড়া নিরাপত্তা ও সতর্কতামূলক নানা ব্যবস্থা শেষে (নগরীর মানিকপীর টিলাস্থ সিটি করপোরেশনের কবরস্থানে) দাফন করা হয়। এ সময় সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডলসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ছাড়াও মৃত নারীর পরিবারের একজন সদস্যও উপস্থিত ছিলেন।

লন্ডনফেরত ওই নারী নগরীর শামীমাবাদ এলাকায় একটি বাসায় থাকতেন। মৃত নারীর পরিবারকে বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হলেও শামীমাবাদ এলাকাকে লকডাউন করার সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।









Leave a reply