করোনা মোকাবেলায় প্রথম পদক্ষেপ কফ-থুতু নিয়ন্ত্রণ

|

করোনাভাইরাসের ঝুঁকি কমাতে হলে কফ-থুতু নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। কারন করোনাভাইরাস ছড়ানোর প্রধান বাহক হিসেবে কাজ করে এই কফ-থুতু ও হাঁচি-কাশি।

রোববার রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে আয়োজিত ‘কফ-থুতু করোনাভাইরাসসহ বহু রোগ ছড়ায় : কফ-থুতু যত্রতত্র ফেলা বন্ধ করো’ শীর্ষক মানববন্ধনে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলোর নেতারা এ দাবি করেন।

মানববন্ধনের আয়োজন ছিল- পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা), ঢাকা যুব ফাউন্ডেশন, নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ ফোরাম (নাসফ) এবং বারসিক। পবার চেয়ারম্যান আবু নাসের খানের সভাপতিত্বে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

কফ-থুতু শুধু অপরিচ্ছন্নতা বা দেখতে নোংরা লাগার বিষয় নয়, এটি পরিবেশেরও মারাত্মক ক্ষতি করে বলে জানান মানববন্ধনে উপস্থিত নেতারা। কফ-থুতু যেখানে সেখানে ফেলার কারণে অনেক রোগের উৎপত্তি হয়। যেহেতু এটি ভেজা অবস্থায় থাকে সেক্ষেত্রে ভাইরাসটি জীবিতও থাকে অনেক বেশি। এর ফলে সরাসরি বাতাসের সংস্পর্শে এসে থুতু ও কফ থেকে ভাইরাস ছড়াতে পারে।

তারা বলেন, যত্রতত্র থুতু ফেলা সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়ায় নিষিদ্ধ হলেও বাংলাদেশে এ ধরনের আইন নেই এবং সচেতনতা তৈরিরও কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ে না। এ সময় সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে পাঁচ দফা সুপারিশ তুলে ধরা হয়। এগুলো হল-

যত্রতত্র থুতু ফেলা নিষিদ্ধ করে আইন এবং জরিমানা করার বিধান রাখা

জনগণকে যেখানে সেখানে প্রকাশ্যে কফ-থুতু ফেলা বন্ধ করার বিষয়ে সচেতনতামূলক আন্দোলন গড়ে তোলা

কফ-থুতু যেখানে সেখানে না ফেলে রাস্তার পাশে ডাস্টবিনে ফেলতে উৎসাহিত করা

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা ও সরকারের বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

করোনাভাইরাস নিয়ে মানুষের ভেতর তৈরি হওয়া আতঙ্ক কমিয়ে এটি প্রতিরোধে সম্মিলিত পরিকল্পনা গ্রহণ করা।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply