বিচারক বদলে এমপিকে জামিন: আইনমন্ত্রী ও দুদক চেয়ারম্যানের পদত্যাগ দাবি আইনজীবী সমিতির

|

আইন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সরকার বিচার বিভাগের ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ করছে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। বিচারক বদলে পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এ কে এম আউয়ালের জামিন পাওয়ার ঘটনার প্রেক্ষিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বুধবার সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। এ ঘটনায় আইনমন্ত্রী ও দুদক চেয়ারম্যানের পদত্যাগ দাবি করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক। হাইকোর্টের বিচারপতির নেতৃত্বে ঘটনা তদন্তেরও দাবি জানান মাহবুব উদ্দিন খোকন।

ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, বিচার বিভাগের ওপর মানুষের আস্থা নষ্ট হয়েছে; ক্ষুণ্ন হয়েছে স্বাধীনতা। আদালত জামিন বাতিলের আদেশের সঙ্গে সঙ্গেই আইন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব সাক্ষরিত এক আদেশে তাকে (মো.আব্দুল মান্নান) পিরোজপুর জেলা ও দায়রা জজের পদ থেকে প্রত্যাহার করে (স্ট্যান্ড রিলিজ) আইন মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত করা হয়। পরে যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ নাহিদ নাসরিনকে ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজের দায়িত্ব দেওয়া হয়। দায়িত্ব দেওয়ার পর তিনি জামিন দেন।

এ ঘটনা দেশের সাধারণ জনগণের বিচার বিভাগের উপর আস্থা নষ্ট করেছে এবং বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (৩ মার্চ) পিরোজপুর জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুল মান্নানের আদালত দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় পিরোজপুর-১ আসনের সাবেক এমপি এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএমএ আউয়াল ও তার স্ত্রী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী লায়লা পারভীনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এ আদেশের পর জেলা দায়রা জজ মো. আব্দুল মান্নান তার দায়িত্ব যুগ্ম জেলা দায়রা জজ নাহিদ নাসরিনকে বুঝিয়ে দেন। পরে ভারপ্রাপ্ত দায়রা জজ নাহিদ নাসরিন তাদের জামিন দেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply