ই-মেইলে প্রতারণার মূলহোতা গ্রেপ্তার

|

ই-মেইল অ্যাকাউন্ট আছে, অথচ লটারিতে বা উত্তরাধিকার সূত্রে টাকা পাওয়ার বার্তা পাননি-এমন একজন লোকও খুঁজে পাওয়া যাবে না। জেনে বুঝেও শুধু লোভের বশে অনেকেই এই পাতা ফাঁদে পা দিয়ে হারান কষ্টার্জিত অর্থ।

বিশ্বব্যাপী ই-মেইলে বার্তার মাধ্যমে পাতা ফাঁদগুলোর অন্যতম হল উত্তারাধিকার সূত্রে টাকা পাওয়ার বার্তা। এ ধরনের প্রতারণাপূর্ণ বার্তাগুলো সাধারণত ‘নাইজেরিয়ান স্ক্যাম’ নামে পরিচিত।

সম্প্রতি এ ধরনের চক্রের মূলহোতা ‘নাইজেরিয়ার যুবরাজ’ নামে আখ্যায়িত ৬৭ বছর বয়সী মাইকেল নিউকে গ্রেপ্তার করেছে যুক্তরাষ্ট্রের লুইজিয়ানার স্লাইডেল পুলিশ ডিপার্টমেন্টের আর্থিক অপরাধ বিভাগ। দীর্ঘ দেড় বছর ধরে সংস্থাটি এ বিষয়ে তদন্ত চালাচ্ছিল।

এ ধরনের প্রতারণা নতুন কিছু নায়। ইন্টারনেট সেবা চালুর সাথে সাথে এ ধরনের প্রতারণারও যাত্রা শুরু হয়।

প্রতিবেদনের সাথে কিছুটা অপ্রাসঙ্গিক হলেও জেনে নেওয়া যাক, কিভাবে নাইজেরিয়ান স্ক্যামের মাধ্যমে প্রতারণা করা হয়।

দৃশ্যমান ইন্টারনেট জগতের আড়ালে আরেকটি জগত আছে, যার ডার্ক ওয়েব। এ ডার্ক ওয়েবে হেন কোনো জিনিস নেই যে পাওয়া যায় না।

প্রতারকরা ডার্ক ওয়েব থেকে মানুষের বিভিন্ন ব্যাক্তি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যেমন- নাম, ঠিকানা, ডাক নাম, ক্রেডিট কার্ড নাম্বার, এমনকি বাবা-মায়ের ডাক নামটি পর্যন্ত অর্থের বিনিময়ে কিনে নেয়। খুব সস্তায় তারা এগুলো কিনে থাকে- যার মূল্য ক্ষেত্র বিশেষে এক ডলারের চেয়েও কম।

এরপর প্রাপ্ত তথ্যগুলো ভিত্তিতে আপনাকে একটি বার্তা পাঠাবে। বার্তায় বলা হবে আপনি ওমুক ব্যক্তির ব্যাংকে বেশ কিছু টাকা রয়েছে; এবং তার একমাত্র জীবিত উত্তরাধিকারী হিসেবে আপনাকে তা ফেরত দিতে চাই। ধরুন টাকার অঙ্কটি ৪০ লাখ ডলার। আপনি হয়তো ওই নামে কোনো আত্নীয় ছিল কিনা সে সম্পর্কে আদৌ জানেন না। কিন্তু অতগুলো টাকার কথা শুনে আপনি হয়তো লোভী হয়ে পড়তে পারেন, এমনটি হলে আপনি তখনই প্রতারক চক্রের ফাঁদে পা দিয়ে দিলেন।

টাকাগুলো পেতে কিছু আইনগত পালনের ফি বাবদ তারা কিছু টাকা আপনাকে পাঠাতে বলবে, ধরুন এর পরিমাণ ৪০ ডলার। মাত্র ৪০ ডলার দিয়ে ৪০ লাখ ডলার পাবেন, এমন ভাবনায় অগ্র-পশ্চাৎ না ভেবেই অনেকে হয়তো টাকা পাঠান। আর তা যদি হয়, তবে অল্পতে বেঁচে গেলেন।

অনেক সময় তারা আপনার ক্রেডিট কার্ড অ্যাকাউন্ট নাম্বার ও পিন নাম্বার চেয়ে বসে। যদি আপনি তা দিয়ে বসেন, তবে নিজের সর্বনাশের চূড়ান্ত নিজেই ঘটালেন।

তাই, আর যাই হোক অপরিচিত কোনো ব্যক্তির কাছ থেকে মেইলে টাকা প্রাপ্তির বার্তাটি একদম বিশ্বাস করবেন না। এ ধরনের বার্তা এলে সরাসরি ডিলিট করে দিন, এবং নিরাপদ থাকুন।

যমুনা অনলাইন: এফএইচ









Leave a reply