পাপিয়া কেলেঙ্কারিতে নরসিংদী যুব মহিলা লীগের কমিটি স্থগিত

|

রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে নানা ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের দায়ে গ্রেফতার হয়েছে নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়া। পরদিনই তাকে তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করে যুব মহিলা লীগ। এবার সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের কমিটি।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আকতার ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কমিটি স্থগিত হওয়ার তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্বান্ত অনুযায়ী সংগঠনের গঠনতন্ত্রের ২৩ ধারা মােতাবেক সাংগঠনিক স্থবিরতার দায়ে নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের কমিটি সাময়িক স্থগিত করা হলাে। এই সিদ্বান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে।

উল্লেখ্য, অবৈধ অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা, প্রতারণার মাধ্যমে চাঁদাবাজি, অনৈতিক কর্মকাণ্ড, জাল নোট সরবরাহ, রাজস্ব ফাঁকি, অর্থ পাচারসহ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকায় দেশত্যাগের চেষ্টাকালে শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে তিন সহযোগীসহ নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পাপিয়াকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১।

র‍্যাব জানিয়েছে, অসহায় সুন্দরী নারীদেরকে নিয়ে অনৈতিক ব্যবসা করতেন শামীমা নুর পাপিয়া। হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। রাজধানীর গুলশানের অভিজাত হোটেল ওয়েস্টিনে প্রেসিডেন্ট স্যুট নিজের নামে সবসময় বুকড করে নানা ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছিলেন শামিমা নূর পাপিয়া। যিনি হোটেলটির বারে বিল বাবদ প্রতিদিন পরিশোধ করতেন প্রায় আড়াই লাখ টাকা।

হোটেল ওয়েস্টিনের ২১ তলার প্রেসিডেন্ট কক্ষটি ভাড়া নিতেন পাপিয়া। গত তিন মাসে ওই কক্ষের ভাড়া পরিশোধ করেছেন প্রায় ৮৮ লাখ টাকা। ১৯ তলায় একটি বার রয়েছে, যেটি তিনি পুরোটাই বুক করে নিতেন। সেখানে প্রতিদিন তিনি আড়াই লাখ টাকা মদের বিল পরিশোধ করতেন। সব মিলিয়ে দেখা যায় ৩ মাসে হোটেল বিল প্রায় ৩ কোটি টাকা।

তার সাথে গ্রেফতার হওয়া তিন সহযোগী হলো- পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন (৩৮) ও পাপিয়ার ব্যক্তিগত পিএস শেখ তায়্যিবা (২২) ও সাব্বির খন্দকার (২৯)।

তাদের দুটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি পিস্তলের ম্যাগজিন, ২০ রাউন্ড পিস্তলের গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ ও নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, ৫টি পাসপোর্ট, ৩টি চেক, বিদেশি মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি ভিসা ও এটিএম কার্ড জব্দ করে র‌্যাব।

এছাড়াও প্রাথমিক তদন্তে ফার্মগেটে পাপিয়ার ২টি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট, নরসিংদী শহরে ২টি ফ্ল্যাট, ২ কোটি টাকা মূল্যের দুটি প্লট, চারটি বিলাসবহুল গাড়ি এবং গাড়ি ব্যবসায় প্রায় দেড় কোটি টাকা বিনিয়োগের তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া, বিভিন্ন দেশের ব্যাংকে নামে-বেনামে অনেক অ্যাকাউন্টে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত থাকার তথ্য পেয়েছে র‌্যাব।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply