বিতর্কিত পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিলে হামলা, আহত ৫

|

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের বিতর্কিত পিআইও নুরুন্নবী সরকারের অপসারণ ও শাস্তির দাবিতে জাতীয় পার্টির ঝাড়ু মিছিলে হামলা চালিয়েছে পিআইও’র ভাড়াটে লোকজন। এতে জাতীয় যুবসংহতি ও ছাত্র সমাজসহ অন্তত ৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। ঘটনার সময় মুজিব জন্ম শতবর্ষের ক্ষণগণনা (কাউন্ট ডাউন) ভাঙচুরের অভিযোগে ছাপরহাটি ইউনিয়ন ছাত্র সমাজের সভাপতি ছাইফুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্তরে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা জানায়, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির ব্যানারে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল করে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে অবস্থান নেয় জাতীয় পার্টি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। দুর্নীতিবাজ পিআইও’র অপসারণ ও শাস্তির দাবিতে পরিষদ চত্ত্বরে বিভিন্ন শ্লোগান দিয়ে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চলছিলো। ঠিক তখন ছাত্রলীগসহ পিআইও’র লোকজন অতর্কিত হামলা চালায়।

নেতাকর্মীদের অভিযোগ, পিআইও নুরুন্নবী’র পক্ষ অবলম্বন করে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সুমন আন্দোলনকারীদের হাত থেকে প্লে কার্ড ছিনিয়ে নিয়ে হামলা করে। পরে তার সঙ্গে আরও ১৫-২০ জন তাদের ওপর হামলা চালায়। হামলার ঘটনায় গেটে থাকা বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা (কাউন্ট ডাউন) ভাঙচুরসহ ৪-৫ জন নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়। আহতরা বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

তাদের আরও অভিযোগ, ঘটনার পর হামলাকারীরা জাতীয় পার্টির দলীয় কার্যালয়ের চেয়ার-টেবিলসহ আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। এসময় তারা উপজেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি সুলতান সুজনকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে নেতাকর্মীকে হুমকি দেয়।

এদিকে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের ক্ষণগণনার কাউন্টডাউন ভাঙচুরের প্রতিবাদে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম লেবুর নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। তবে, পিআইও’র পক্ষ অবলম্বন ও হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, পিআইওর বিরুদ্ধে মিছিল করে পরিষদের গেট ভাঙচুরের চেষ্টা চালায় এবং ক্ষণগণনার ঘড়ি ভাঙচুর করে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply