স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি উত্তর কোরিয়ার

|

বিশ্ব রাজনৈতিক পরিমন্ডলে উত্তর কোরিয়া দীর্ঘদিন ধরেই বিচ্ছিন্ন। কোরীয় উপদ্বীপে সংঘাত, যুদ্ধ বা রাজনৈতিক অস্থিরতা নতুন কিছু নয়। উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার এই সঙ্কটে নিজেদের স্বার্থে ভূমিকা রেখে চলেছে বিশ্ব পরশক্তিগুলো।

সম্প্রতি উত্তর কোরিয়া একের পর এক আনবিক এবং আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। ২৯ নভেম্বরে চালানো হয় সর্বশেষ পরীক্ষাটি।

ব্যালিস্টিক মিসাইলগুলোকে আরো নিখুঁত করতে স্যাটেলাইটের সহায়তা নিচ্ছে উত্তর কোরিয়া। সিউল দাবি করছে, শিগগিরই স্যটেলাইট উৎক্ষেপণ করতে পারে পিয়ংইয়ং। দক্ষিণ কোরিয়ার গণমাধ্যমে বেশ ফলাও করে প্রচার হচ্ছে এ খবর।

জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী পারমানবিক বোমা বহনে সক্ষম কোন মিসাইলের পরীক্ষা চালাতে পারবে না উত্তর কোরিয়া। একই সাথে ব্যালেস্টিক মিসাইল সহায়ক স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

গত অক্টোবরে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে উত্তর কোরিয়ার অবস্থান তুলে ধরেন দূত কিম ইন রিয়ং। তিনি বলেন, ‘অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও উন্নয়নই হল আমাদের স্যাটেলাইট পরিকল্পনার উদ্দেশ্য। জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার কারণে উদ্দেশ্য থেকে পিছু হটবে না পিয়ংইয়ং।’

এদিকে নিরপেক্ষ বিশ্লেষকরা বলছেন ‘স্যাটেলাইট প্রযুক্তি নিয়ে অগ্রগতি নিয়ে উত্তর কোরিয়ার হাক-ডাক আসলে লোক দেখানো। তাদের প্রকৃত উদ্দেশ্য পারমানবিক অস্ত্রের পরীক্ষা নির্বিঘ্নে চালিয়ে যাওয়া।









Leave a reply