ঢাবিতে ছাত্রদলের সমাবেশের পাশেই ককটেল বিস্ফোরণ

|

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের কর্মসূচি চলার সময় দুই দফা ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। আজ রোববার সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১২টার মধ্যে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ জন্য ছাত্রলীগকে দায়ী করেছেন ছাত্রদলের নেতারা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ বলছে, ছাত্রদলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণেই ক্যাম্পাসে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে। এদিকে জড়িতদের খুঁজে বের করতে চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানান প্রক্টর।

ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দেশের বিভিন্ন স্থানে হামলার প্রতিবাদ এবং খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী সকাল ১১টার দিকে মিছিল বের সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। মধুর ক্যান্টিন থেকে মিছিলটি বের হয়ে কলা ভবনের পেছনের গেইট অতিক্রম করার সময় ডাকসু ভবনের পাশে দুইটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। পরে মিছিল শেষ করে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে সমাবেশ করে ছাত্রদল। সেসময় তাদের সমাবেশস্থলের পাশেই আরেকটি ককটেলের বিস্ফোরণ হয়। এসময় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করে। এর কিছুক্ষণ পর সমাবেশ শেষ করে তারা। তবে এসব ঘটনায় কেউ আহত হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের ব্যানারে কর্মসূচিতে কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, ঢাবি শাখার আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সদস্য সচিব মো. আমানুল্লাহ আমানসহ প্রায় তিনশতাধিক কেন্দ্রীয় ও ঢাবি শাখার নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশে ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও স্বৈরাচার সরকারের পতনে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

ঢাবি শাখার সদস্য সচিব মো. আমানুল্লাহ আমান বলেন, ক্যাম্পাসে এর আগেও বেশ কয়েকবার ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় প্রক্টরকে জানানো হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তিনি বলেন, ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল এবং ছাত্রদলকে বিতাড়নের জন্য এ ঘটনা বাববার ঘটছে। অবিলম্বে জড়িতদের খুঁজে বের করতে প্রক্টরকে অনুরোধ জানান আমান।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, ছাত্রদলের বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কমিটি দেয়ার পর তাদের মধ্যে গ্রুপিং দেখা দিয়েছে। একপক্ষ কমিটি বর্জন করেছে। তারাই ককটেল বিস্ফোরণের সাথে জড়িত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, যারা এধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে তাদের খুঁজে বের করার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছি। আশা করি খুব শীঘ্রই তাদের ধরতে পারবো। শিক্ষার সুন্দর পরিবেশকে অস্থিতিশীল করার জন্যই ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটনাও হচ্ছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply