ভোটার হওয়ার আগেই জাতীয় পরিচয়পত্র পাচ্ছেন অর্ধকোটি নাগরিক

|

ভোটার তালিকায় নাম ওঠার আগেই জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পেতে যাচ্ছেন দেশের অর্ধকোটির বেশি নাগরিক। এদের বয়স ১৫ থেকে ১৭ বছর। শিগগিরই জেলা ও উপজেলা পর্যায় থেকে তাদের কার্ড দেয়া হবে।

সম্প্রতি ১৮ বছরের কম বয়সী নাগরিকদের এনআইডি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে তাদের লেমিনেটেড পরিচয়পত্র দেয়া হবে। চাকরি, পাসপোর্ট, হজ নিবন্ধন ইত্যাদি কাজের সুবিধার বিষয়টি বিবেচনা করে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময়ে তাদের তথ্য সংগ্রহ করেছে কমিশন। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আরও জানা গেছে, বিগত বছরগুলোতে ১৮ বছর পূর্ণ হওয়া নাগরিকদের ভোটার তালিকাভুক্ত করা হতো। ভোটাররাই শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে আসছেন। এবার ১৫ বছর থেকে বেশি বয়সীদের তথ্য সংগ্রহ করেছে ইসি। এদের মধ্যে যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে তারা এখনই ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্তদ্ধ হবেন না। তবে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেবে ইসি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, প্রথমবারের মতো ১৫ বছরের বেশি বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। জেলা নির্বাচন কার্যালয়গুলোতে এসব কার্ড প্রিন্ট করে উপজেলা পর্যায়ে বিতরণ করা হবে।

তিনি বলেন, ১৮ বছরের কম বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দিলে আইনের কোনো ব্যত্যয় হবে না।

জানা গেছে, চলতি বছর ২৩ এপ্রিল থেকে সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করে ইসি। এবার ১৫ বছর বা এর বেশি বয়সীদের তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ৯৫ লাখ ৭৬ হাজার ৯৫৩ জনের তথ্য সংগ্রহ করেছেন তথ্য সংগ্রহকারীরা। এর মধ্যে কমবেশি ৬০ লাখ নাগরিকেরই বয়স ১৮ বছরের নিচে। বাকিদের বয়স ১৮ বছরের বেশি।

১৮ বছরের বেশি বয়সী নাগরিকের খসড়া ভোটার তালিকা আগামী ২০ জানুয়ারি ও ১ মার্চ চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। আর ১৮ বছরের কম বয়সী ৬০ লাখ (কমবেশি) নাগরিকের আঙুলের ছাপ ম্যাচিং হলে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

১৮ বছরের কম বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার প্রস্তাবনা নির্বাচন কমিশনে তুলে ধরে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগ। কম বয়সীদের পরিচয়পত্র দেয়ার যৌক্তিকতায় বলা হয়েছে, সামরিক বাহিনীতে ১৬ বছর বয়সীদের নিয়োগ দেয়া হয়। এছাড়া হজ নিবন্ধন, বিভিন্ন দেশের ভিসা পেতে জাতীয় পরিচয়পত্র চাওয়া হয়। শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতেও এনআইডি নম্বর দিতে হয়।

ওই প্রস্তাবনায় ‘জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন (সংশোধন) আইন, ২০১৩’-এর (৫)(২)ধারা উল্লেখ করে বলা হয়, ১৮ বছরের কম বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হলে আইনের ব্যত্যয় ঘটবে না, তারা ভোটারও হবেন না।

‘জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন (সংশোধন) আইন, ২০১৩’-এর ৫(১) ধারায় ভোটার তালিকাভুক্ত প্রত্যেক নাগরিককে নির্ধারিত পদ্ধতি ও শর্ত সাপেক্ষে জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার কথা উল্লেখ রয়েছে। আর ৫(২) ধারায় বলা হয়েছে, কমিশন অন্যান্য নাগরিককে নির্ধারিত পদ্ধতি ও শর্ত সাপেক্ষে জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান করতে পারবে।

ইসির একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, হালনাগাদে সংগ্রহ করা নাগরিকদের তথ্য এখনও ইসির সার্ভারে আপলোড করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রায় ৯২ লাখ ভোটারের তথ্য সার্ভারে আপলোড হয়েছে। বাকিদের তথ্য আপলোডের কাজ চলমান।

নতুন আপলোড হওয়া নাগরিকদের আঙুলের ছাপ ম্যাচিং সম্পন্ন হওয়ার পর তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হবে। প্রত্যেকটি জেলা নির্বাচন অফিসে নিজ নিজ জেলার জাতীয় পরিচয়পত্র প্রিন্ট দেয়া হবে। উপজেলা বা থানা নির্বাচন অফিসগুলো এসব কার্ড বিতরণ করবে। ১৮ বছরের কম বয়সীদের কার্ডের রংও ভিন্ন ধরনের করার চিন্তা রয়েছে।

আরেক কর্মকর্তা জানান, ইসির পরিকল্পনায় ১০ বছর বা তার বেশি বয়সীদের তথ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে। ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে তাদেরও পর্যায়ক্রমে জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হবে। তবে তা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

পাসপোর্টে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক : ইসি সূত্রে জানা গেছে, ১৫ বছরের বেশি বয়সীদের পাসপোর্ট করার ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর রাখার বাধ্যবাধকতা আরোপের অনুরোধ জানাতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন। শিগগিরই নির্বাচন কমিশন থেকে একটি চিঠি পাসপোর্ট অধিদফতরে পাঠানো হচ্ছে।

ওই চিঠিতে ১৫ বছরের বেশি বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার বিষয়টি উল্লেখ করা হচ্ছে। তাদের পাসপোর্ট দেয়ার ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর দেয়ার বিষয়টি বাধ্যবাধকতা আরোপের অনুরোধ জানানো হবে। বর্তমানে ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের পাসপোর্ট করতে জাতীয় পরিচয়পত্র ও ১৮ বছরের কম বয়সীদের জন্মনিবন্ধন বাধ্যতামূলক রয়েছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply