থানায় অভিযোগ করায় স্ত্রীকে বন্ধুদের দিয়ে গণধর্ষণ!

|

ময়নসিংহ ব্যুরো
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের রতন মিয়া। স্ত্রীকে নানা অযুহাতে করেন নির্যাতন। অতিষ্ট হয়ে থানায় অভিযোগ দেন স্ত্রী। এরপর স্থানীয় ভাবে পারিবারিক এই কলহের মিটমাট হয়। স্ত্রীকে নির্যাতন করবেননা বলে মুচলেকা দিয়ে সংসার শুরু করে রতন মিয়া। তবে এই অপমান ভুলতে পারেননি তিনি। প্রতিশোধের ছক আঁকেন বন্ধুদের নিয়ে।

শনিবার ওই নারী ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার ফায়ার স্টেশনের পাশে অবস্থিত একটি বাসায় কাজ করতে যান। রতন মিয়া ওই বাসা থেকে তাকে নিয়ে বেড়াতে বের হয়। বিভিন্ন জায়গায় বেড়ানোর পর রাত নেমে আসে। রাতে স্বামী রতন মিয়া ঈশ্বরগঞ্জের শিবপুর এলাকায় স্থানীয় দরগায় গান শুনানোর কথা বলে গৃহবধূকে নিয়ে যায় উপজেলার জাটিয়া ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামের বাবু মিয়ার একটি পরিত্যাক্ত বাড়িতে। ওই বাড়িতে আগে থেকে অবস্থান করছিল আরো কয়েকজন। সেখানে যাওয়ার পর তাকে আটকে গণধর্ষণ করা হয়। এসময় নিজে সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন স্বামী রতন মিয়া।

এঘটনায় রোববার ভুক্তভোগী গৃহবধূ চার জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা করেন। গ্রেফতার হয় স্বামী সহ দুইজন। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ওই নারীর স্বামী মো. রতন মিয়া (৩৫) ও নজরুল ইসলাম (২৫)। এজাহারে থাকা হাকিম মিয়া (৩০) ও আক্তার হোসেন (৪০) নামে দুই অভিযুক্ত পলাতক রয়েছে।

নির্যাতিত নারী জানান, তার মুখে ও চোখে আঘাত করে চালানো হয়েছে অমানুষিক নির্যাতন। নির্যাতন চালায় অন্তত আটজন। আর এসময় তাকে ধরে রেখে সহযোগিতা করে স্বয়ং স্বামী।

তিনি বলেন, স্বামীর কাছে যদি স্ত্রী নিরাপদ না থাকে তাহলে আর কোথায় যাবো। এঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাখের হোসেন সিদ্দিকী জানান, ধর্ষণের ঘটনায় স্বামী সহ চারজনের নাম উল্লেখ করে ও বাকীদের অজ্ঞাত দেখিয়ে থানায় মামলা হয়েছে। দুই জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বামী রতন মিয়া ঘটনা স্বীকার করেছে। বাকীদের গ্রেফতারে আভিযান চলছে। নির্যাতিত নারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ফরেন্সিক বিভাগে করা হয়েছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply