খেঁজুর রস সংগ্রহে ব্যস্ত যশোরের গাছিরা

|

যশোরের খেঁজুর রস আর গুড়ের খ্যাতি দেশজুড়ে। শীত জেঁকে বসার পর থেকেই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন গাছিরা। রস সংগ্রহের পর তৈরি হচ্ছে বিখ্যাত পাটালি ও খেঁজুর গুঁড়। যা স্থানীয়দের জীবনধারার সাথে জড়িয়ে আছে। তবে, গুঁড়ের কাঙ্খিত দাম না পাওয়ায় আছে হতাশাও।

বছরের ঠিক এই সময়েই ব্যস্ত হয়ে ওঠেন গাছিরা। প্রস্তুতি চলে রস সংগ্রহের। সেজন্য প্রক্রিয়া মেনে কাটা হয় খেঁজুর গাছ। এরপর অপেক্ষা শীত জেঁকে বসার। বসানো হয় হাড়ি। তারপর শুধুই রস সংগ্রহ।

মোটামুটি যশোরের সব উপজেলায় খেঁজুর গাছ আছে। তবে, এই সংখ্যাটা সবচেয়ে বেশি সদর আর বাঘারপাড়া। যা, এখন তাদের জড়িয়ে গেছে স্থানীয়দের জীবনধারার সাথে।

খেঁজুর রস বাড়িতে আনার পর আসল কাজ। দেয়া হয় জ্বাল। সেটা শুকিয়ে ঘন করতে লেগে যায় তিন থেকে চার ঘন্টা। এরপর নানা প্রক্রিয়ায় তৈরি হয় বিখ্যাত পাটালি-খেঁজুর গুঁড়। যা যশোরের ঐতিহ্য।

বিখ্যাত সেই গুঁড় কেউ বাড়ি থেকে কিনে নিয়ে যান। কেউ বা সংগ্রহ করেন বাজার থেকে। এরপর বিক্রির উদ্দেশে তা চলে যায় দেশজুড়ে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply