ব্রিজের বেহাল অবস্থায় চলাচল বন্ধ, ভোগান্তিতে উত্তরাঞ্চলের ৯ জেলার মানুষ

|

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জের ভূইয়াগাঁতি এলাকার পুরাতন একটি ব্রিজের পাটাতন ভেঙ্গে যাওয়ায় এ মহাসড়ক দিয়ে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ কারণে উত্তরাঞ্চলের ৯ জেলা বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাও, গাইবান্ধা, নীলফামারী, সৈয়দপুর, কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড় এবং ঢাকার মধ্যে যানবাহনগুলোকে বিকল্প পথে চলাচল করতে হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আশরাফুল ইসলাম প্রমানিক জানান, নিরাপত্তার কারণে বুধবার সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে ভূইয়াগাতি ব্রিজটি দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এ মহাসড়কে চলাচলকৃত যানবাহনগুলোকে বিকল্প পথে চলাচল করার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। আমরা আশা করছি বিকল্প সড়কটি নির্মাণ হয়ে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে।

নির্বাহী প্রকৌশলী আরও বলেন, ৪/৫ দিন আগে পুরাতন ব্রিজটির পাটাতন ৫/৬ ইঞ্চি ডেবে গিয়েছিল। ওই অবস্থাতেই যানবাহন চলাচল অব্যাহত ছিল। কিন্ত ব্রিজটির একটি পাটাতন ২/৩ ফুট ডেবে যায়। ওই অবস্থায় দিনভর ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেয়া হলেও সন্ধ্যার পর ব্রিজটি দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

ঢাকা- বগুড়া মহা সড়কের উন্নতিকল্পে ফোরলেনের কাজ শুরু হয়েছে। প্রায় ৭০ বছর আগের পুরাতন ওই ব্রিজের পাশ দিয়ে বাইপাস রাস্তা নির্মাণ না করেই নতুন ব্রিজের নির্মাণ কাজ চলছে। এ অবস্থায় পুরাতন ব্রিজের পাশ থেকে মাটি সরে যাওয়ায় ব্রিজটি আরও ঝুঁকিপুর্ণ হয়ে উঠেছিল।

সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার (বিপিএম) টুটুল চক্রবর্তী বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজটি দিয়ে হালকা যানবাহনও চলাচল করতে পারছে না। যে কারণে ঝুঁকি এড়াতে সড়ক বিভাগ মহাসড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। যানবাহনগুলোকে বিকল্প পথে চলাচল করতে বলা হচ্ছে। এ জন্য ওই সকল সড়কে বাড়তি নিরাপত্তা হিসাবে ট্রাফিক ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজটির পাশেই বিকল্প সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে জানান পুলিশ সুপার।

এ অবস্থায় এই মহাসড়কের চলাচলকৃত যানবাহনগুলো বিকল্প পথে সিরাজগঞ্জ-রায়গঞ্জ আঞ্চলিক, বগুড়ার ধুনট হয়ে ও কাজি’পুর সড়ক দিয়ে সিরাজগঞ্জ শহর হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যুক্ত হচ্ছে এবং নাটোর হয়ে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়ক দিয়ে ঢাকার পথে যানবাহনগুলোকে চলাচল করতে হচ্ছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply