বাংলাদেশ দূতাবাস ও কোস্ট গার্ডের সহায়তায় মিয়ানমার থেকে ফিরেছে ১৭ বাংলাদেশি

|

বাংলাদশে দূতাবাস ও কোস্টগার্ডের তৎপরতায় গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার সময় ইঞ্জিন বিকল হয়ে মিয়ানমারের সমুদ্রসীমায় প্রবেশ করে মিয়ানমার নৌবাহিনীর হাতে আটক হওয়া ১৭ বাংলাদেশি দেশে ফিরেছে আজ।

গত ২৯ নভেম্বর ২০১৯ এফভি গোলতাজ-৪ মাছ ধরার উদ্দেশ্যে গভীর সমুদ্রে গেলে বোটের ইঞ্জিন বিকল হয়ে তা ভাসতে ভাসতে মিয়ানমারের মায়ো দ্বীপের কাছাকাছি চলে যায়। এরপরই বোটটিকে মিয়ানমারের নৌবাহিনী জাহাজ ‘ইন-লে’ গত ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখ বিকেল ৪ ঘটিকার সময় সনাক্ত করে এবং সিতওয়েতে নিয়ে যায়।

বোটের ক্রুদের জাতীয়তা যাচাই শেষে রাখাইন প্রদেশের সীমান্ত সুরক্ষা ও নিরাপত্তা মন্ত্রী ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ বাংলাদেশ দূতাবাসের কাছে হস্তান্তর করে।

ঘটনা জানার পরপরই বাংলাদেশ দূতাবাস মালিক পক্ষ এবং বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের সাথে যোগাযোগ করে দ্রুততার সাথে হস্তান্তর প্রক্রিয়ার অনুরোধ জানালে আজ ০৬ ডিসেম্বর শুক্রবার বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড জাহাজ তাজউদ্দীন সেন্ট মার্টিন্স দ্বীপের ৬ মাইল পূর্বে বাংলাদেশ মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সমুদ্র সীমানার জিরো লাইনে বোটটিকে ১৭ জন ক্রু সহ বোটটিকে সঠিক ও নিরাপদে মালিক পক্ষের নিকট হস্তান্তর করে।

উদ্ধার হওয়া বোটের ক্রুগণ: মোঃ ফারুক (৪৫), মোঃ বাবুল (৫৫), মোঃ সেলিম (৫৭), মোঃ আবু সৈয়দ (৩৭), মোঃ কালাম (৫৭), মোঃ জসিম (৪০), মোঃ বুলেট (৪৪), মোঃ মোতাহার (৪৫), মোঃ কামাল (৫০), মোঃ জসিম (৫১), মোঃ নাসিম (৪৭), মোঃ জহির (৩০), মোঃ শাহ আলম (৬১), মো. নুর ইসলাম (৪৮), মোঃ বেলাল (২৭), মোঃ আল আমিন (২২), মোঃ জাহাঙ্গির (৪১)

বোটটির মালিক আশরাফ হোসেন মাসুদ (মাসুদ ফিশারিজ এন্ড ফিশ প্রসেসিং লিমিটেড)। বোটে থাকা জেলেদের সবাই চট্টগ্রাম ভোলা মুন্সিগঞ্জ এবং চাদঁপুরের বাসিন্দা।









Leave a reply