বানের পানিতে নষ্ট ৪৫ লাখ পরীক্ষার খাতা

|

শহরের অলিগলি আর সড়ক পেরিয়ে বানের পানি ঢুকে পড়ে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের তিনটি গুদামঘরেও। এসব ঘরে নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিতব্য জেএসসি এবং ২০১৮ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার খাতা-ওএমআর শিটসহ অন্য উপকরণ মজুদ ছিলো। মূল্যবান সামগ্রী নষ্ট হওয়ায় পরীক্ষা নিয়ে দুশ্চিন্তায় কর্তৃপক্ষ।

শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত রাখা ৪৫ লাখ পিস খাতাসহ অন্যান্য সামগ্রী নষ্ট হয়ে গেছে। যার আর্থিক মূল্য ১০ থেকে ১২ কোটি টাকা।

হাতে থাকা মাত্র দু’মাস সময়ে জেএসসি পরীক্ষার আগে খাতাগুলো আবারও প্রস্তুত সম্ভব হবে কিনা এ নিয়ে সংশয়ে বোর্ড কর্তৃপক্ষ।

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তোফাজ্জুর রহমান বলেন, আমাদের তিনটি গুদামের কিছু আর কাজে লাগানো সম্ভব হবে কিনা বলতে পারছি না।

এবারের বন্যায় জেলার ৩৪৮টি প্রাথমিক ও ৩২০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান বন্ধ রয়েছে। এসব বিদ্যালয়ে ছাদসমান পানি আটকে ছিলো গত মঙ্গলবার পর্যন্ত।

শিক্ষকরা বলছেন, বন্যার পানিতে বইও ভেসে গেছে হাজার হাজার শিক্ষার্থীর। নতুন করে তাদের হাতে বই তুলে দেয়ার তালিকা করছে শিক্ষা অফিস। পানি নেমে যাবার পর এখন চলছে বিদ্যালয় ভবনগুলো পরিস্কারের কাজ। এরপর বিশুদ্ধ পানি এবং যাতায়াতের সুব্যবস্থা নিশ্চিত হলেই খুলে দেয়া হবে প্রতিষ্ঠানগুলো।

সুইহারী মাঝাডাঙ্গা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি শফিউল আলম বাচ্চু বলেন, আমাদের স্কুলের চালা পর্যন্ত পানিতে ডুবে ছিল। চেয়ার-টেবিল ছাড়া আর কিছুই কাজে লাগানো যাবে না। সব কিছু নতুন করে সাজাতে হবে আবার।

/কিউএস


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply