রানু মণ্ডলের পর এবার ভাইরাল আশফাকের গান

|

গভীর রাতে সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে আটক করে থানায় নিয়ে গেল পুলিশ। তবে এর পরের ঘটনা একেবারেই উল্টো।

আটক সেই ব্যক্তিকে জেরা তো দূরের কথা উল্টো পকেটে টাকা দিয়ে সসম্মানে বিদায় করে সেই থানার পুলিশরা।

সম্প্রতি এমন মজার ঘটনা ঘটেছে ভারতের ইসলামপুর থানায়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারে প্রকাশ, রাতে শহরের স্টেশন চত্ত্বরে উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘুরঘুর করছিলেন মুহাম্মদ আশফাক নামের উস্কোখুস্কো চুলের এক ব্যক্তি। বয়স ৪৫ এর নিচে হবে না। তাকে দেখে সন্দেহ হয় টহল পুলিশের। এরপর তাকে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয় ভারতের ইসলামপুর থানায়।

কিন্তু থানায় নিয়ে যাওয়ার পর পুলিশ তার প্রতিভার কথা জানতে পারে। চমৎকার গান গাইতে পারেন সেই ব্যক্তি। তাই রাতেই ভারতীয় দুই কিংবদন্তি শিল্পী মুহাম্মদ রফি, কিশোর কুমারের একের পর এক গান গেয়ে থানার সব পুলিশ-আসামিদের মাতিয়ে দেন তিনি।

এতে পুলিশ কর্মকর্তারা এতোটাই খুশি হন যে, ওই ব্যক্তিকে শুধু ছেড়েই দেননি, তাকে উপহার হিসেবে টাকাও দেন।

তার সেই গানের ভিডিও মোবাইল ফোনে ধারণ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন থানার ডিউটি অফিসার সৌমিক চক্রবর্তী।

আর এরপর থেকে সে ভিডিও ভাইরাল হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে সৌমিক চক্রবর্তী বলেন, কী কারণে রাতে রাস্তায় ছন্নছাড়ার মতো ঘোরাফেরা করছিল আশফাক তা আমাদের এখনও বোধগম্য নয়। তবে তিনি একজন গায়ক, বিভিন্ন বিয়ের অনুষ্ঠানে গান গেয়ে উপার্যন করেন এই ব্যক্তি। আমরা তার গান শুনে হতচকিত হয়ে গেছি। তার গানে মুগ্ধ হয়ে আইসি শমীক চট্টোপাধ্যায় তাকে ৫০০ টাকা দিয়েছেন।

পুলিশ কর্মকর্তারা শমীক চট্টোপাধ্যায় বলেন, এত উঁচু স্কেলের গান প্রতিভা না থাকলে কেউ সহজে গাইতে পারবে না। এই ব্যক্তির গলায় ‘লোগ কাহতে হ্যায় ম্যায় শরাবি হুঁ’, ‘হাথো কি চন্দ লকিড়োঁ কা’ গান অসাধারণ লেগেছে আমার।

এদিকে টাকা পেয়ে বেশ খুশি মুহাম্মদ আশফাক। তিনি বলেন, প্রথমে খুব ভয় পেয়েছিলাম। কিন্তু পরে আমার পরিচয় পেয়ে পুলিশদের ব্যবহারে আমি অভিভূত।

তিনি জানান, ইসলামপুর মেলার মাঠের বাসিন্দা তিনি। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বলিউড সিনেমার পুরনো দিনের হিট গানগুলো গেয়ে জীবন চলে তার।

ইসলামপুর থানায় অনুষ্ঠান করতে পুলিশ সদস্যরা তাকে অগ্রিম টাকা দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

এমন খবরে ইসলামপুরবাসীরা জানাচ্ছেন, সম্প্রতি রানাঘাট স্টেশন থেকে এমন এক ঘটনাতেই রানু মণ্ডলকে পেয়েছে বলিউড। এবার কি ইসলামপুর স্টেশন চত্বরের মুহাম্মদ আশফাকের গতি হচ্ছে!









Leave a reply