বুলবুলকে থোড়াই কেয়ার শামসুরের, হাঁকালেন সেঞ্চুরি

|

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ প্রভাব ফেলেছে জাতীয় লিগে (এনসিএল)। শনিবার বৃষ্টির কারণে কোনও বল মাঠে গড়ানোর আগেই প্রথম দিনের খেলা পরিত্যক্ত হয় দুই ভেন্যুতে। তবে অন্য দুই ম্যাচে দিনের অর্ধেকটা সময় পর্যন্ত খেলা হয়েছে। তবে ‘বুলবুল’ আতঙ্কের মাঝেও অনবদ্য সেঞ্চুরি করে দিনটা নিজের করে নিয়েছেন শামসুর রহমান। বুলবুলকে যেন থোড়াই কেয়ার করলেন।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আসার খবরে সারাদিনই মুখ গোমরা করে ছিলো ঢাকার আকাশ; ঝিরিঝিরি বৃষ্টিতে একটা বলও মাঠে গড়ায়নি। বৃষ্টি বিলাসেই অলস সময় কাটিয়েছেন খুলনা আর রাজশাহীর ক্রিকেটাররা। বরিশালে স্বাগতিকদের সঙ্গে চট্টগ্রামের প্রথম দিনটাও ভেসে গেছে বৃষ্টিকে।

টায়ার-২ ম্যাচে রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় ঢাকা মেট্রো ও সিলেট বিভাগ। টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় সিলেট। ব্যাটিং পাওয়ার সুযোগটা হেলায় হারায়নি ঢাকা মেট্রো। শুরুতে আজমির আহমেদকে (১৭) হারালেও দলকে বিপদে পড়তে দেননি রাকিন আহমেদ ও শামসুরের ব্যাট। দু’জনের গড়েন ৯৮ রানের জুটি। ফিফটি থেকে দুই রান দূরে থাকতে এনামুল হক জুনিয়রের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন রাকিন। তবে থামানো যায়নি শামসুরকে। অধিনায়ক মার্শাল আইয়ুব (১) দ্রুত ফেরার পর আল-আমিনকে সঙ্গী করেন শামসুর। এই দুজনের ১২৪ রানের জুটি ভাঙেন রেজাউর রহমান। দলীয় ২৫০ ও ব্যক্তিগত ৬৯ রানে বোল্ড হন আমিন। তার আগে অবশ্য দুর্দান্ত খেলে সেঞ্চুরি উদযাপন করেন শামসুর। তার ১৯৩ বলে ১১৪ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৩ চারে। শামুসরকেও ফেরান রেজাউর।
এর পরপরই আরও দুই উইকেট হারায় ঢাকা মেট্রো। তবে হাতে উইকেট এবং সময় থাকলেও বিরূপ আবহাওয়ার কারণে ৭ উইকেটে ২৮২ রান নিয়ে সাজঘরে ফেরত যায় দু’দল।

আবহাওয়া ভাল থাকলে আগামীকাল দ্বিতীয় দিন শুরু করবেন ঢাকা মেট্রোর দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান শরিফুল্লাহ (২১) ও নিহাদুজ্জামান (০)। ২০ ওভারে ৪ উইকেট নিয়ে দিন শেষে সিলেটের সেরা বোলার রেজাউর রহমান। ৩ উইকেট নিয়েছেন এনামুল হক জুনিয়র।

বগুড়ায় আলোক স্বল্পতার কারণে ম্যাচ শুরু হতে দেরী হয় প্রায় এক ঘণ্টা। তবে টস জিতে বল হাতে দারুণ শুরু করে ঢাকা বিভাগ। স্কোর বোর্ডে কোন রানো যোগ করার আগেই রংপুরের দুই ওপেনারকে ফেরান ঢাকার পেসাররা।

প্রথম ওভারে রিসাদ হোসেনকে আউট করেন শাহাদাত আর পরের ওভারেই মেহেদী মারুফের উইকেট তুলে নেন সালাউদ্দিন শাকিল। সোহরাওয়ার্দী শুভ হাল ধরলেও ৫৭ রানে তাকে থামান নাজমুল অপু। অধিনায়ক নাইম ইসলাম শাহাদাতের শিকার হয়ে ফিরেন ২৩ রানে। ৫ উইকেটে ১১০ রান নিয়ে খেলা শুরু করবেন নাসির আর তানবির হায়দার।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply