সৌরভকে নিয়ে মুখ খুললেন শাস্ত্রী

|

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই)সভাপতি হচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। প্রায় সপ্তাহ দুয়েক আগেই এ খবর চাউর হয়। তিনদিন হয়ে গেল আনুষ্ঠানিকভাবে সেই পদ অলঙ্কৃত করেছেন তিনি।

তবে এতদিন এ নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন ভারত জাতীয় দলের প্রধান কোচ রবি শাস্ত্রী। অবশেষে নীরবতা ভাঙলেন তিনি। বললেন, বিসিসিআই’র প্রশাসক পদে সৌরভের নিয়োগ দেশের ক্রিকেটে সুদিনের প্রথম ধাপ।

নয়া বোর্ড প্রেসিডেন্টকে শুভেচ্ছা জানিয়ে এমন মন্তব্য করেন শাস্ত্রী। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, সৌরভকে অন্তর থেকে শুভেচ্ছা জানাই। বোর্ডের প্রধান চেয়ারে এমন একজন লোককে বসানো হয়েছে, যিনি প্রকৃত অর্থে সবসময় অধিনায়ক। এ নিয়োগই বলে দিচ্ছে, ভারতীয় ক্রিকেট সঠিক পথে হাঁটছে। মাঠের নেতা যখন প্রশাসনিক লিডার হন, তখন এটা দেশের ক্রিকেটের পক্ষে এক জয়ের মুহূর্ত।

সৌরভ বোর্ড সভাপতি হওয়ার পর এ প্রথম মিডিয়ায় সামনে কথা বললেন শাস্ত্রী। সবার সম্মতিতে বিসিসিআই’র ৩৯তম প্রেসিডেন্ট হয়েছেন প্রিন্স অব ক্যালকাটা। বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যভার গ্রহণ করেন তিনি। দায়িত্ব নিয়েই বোর্ডের আয়বৃদ্ধি থেকে শুরু করে সংস্কার পরিকল্পনা তৈরি করে ফেলেছেন মহারাজ।

সেই সঙ্গে দেশের ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বাড়াতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে ভাবছেন সৌরভ। টিম ইন্ডিয়া অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ভারতীয় ক্রিকেটকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন তিনি।

বোর্ডের সভাপতি হয়েই আইসিসি’র কাছ থেকে বিসিসিআই’র বকেয়া আদায় সোচ্চার সৌরভ। পাঁচ বছরের সার্কেলে (চক্র) বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থার কাছে ৩৭২ মিলিয়ন ডলার প্রাপ্য ভারতীয় বোর্ডের। এ নিয়ে দাদার সঙ্গে একমত শাস্ত্রী।

ভারতীয় কোচ বলেন, আইসিসি’র কোষাগার ভরাচ্ছে ভারত। যা উপার্জন করে দিচ্ছে বদলে নিজের প্রাপ্যটুকু কী পাচ্ছে বিসিসিআই? উল্টো এবার বিশ্ব ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা থেকে নিজের প্রাপ্য বুঝে নেয়া উচিত।

সৌরভ-শাস্ত্রীর দ্বন্দ্ব সবার জানা।নানা ইস্যুতে বিবাদে জড়ান তারা। দাদার কারণেই একবার কোচ হতে পারেননি শাস্ত্রী। সেবার কোচ হন কিংবদন্তি লেগস্পিনার অনিল কুম্বলে।









Leave a reply