সীমান্তে নিহত যুবকের লাশ ৪ দিন পর ফেরত দিল বিএসএফ

|

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বুজরুক কান্ধাল সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে নিহত বাংলাদেশি যুবক শ্রীকান্ত সিংহ ওরফে কামরুর (২৭) মৃতদেহ চার দিন পর ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ।

বৃহস্পতিবার বিকালে ভারতের খোরকা ক্যাম্পের বিএসএফ জাওয়ানরা এ লাশ হস্তান্তর করেছে। এর আগে দুপুরে ভারত ও বাংলাদেশ দু-দেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবি ও বিএসএফ এর পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। মৃতদেহ ফেরতের সময় বাংলাদেশের বিজিবির পক্ষে হরিপুর কান্ধাল বিওপি ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার আবুল হোসেন, হরিপুর থানার ওসি তদন্ত আব্দুস সবুর, আমগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পাভেল তালুকদার ও নিহত শ্রীকান্ত সিংহের পরিবারের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। নিহত শ্রীকান্ত সিংহ হরিপুর উপজেলার আমগাঁও ইউনিয়নের কালচা গ্রামের খেলোরাম সিংহের ছেলে।

এবিষয়ে ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এন এম সামীউন্নবী চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও কোন সাড়া পাওয়া যায় নাই।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কান্ধাল ক্যাম্পের বিজিবি’র এক সদস্য জানান, লাশ ফেরতের ব্যাপারে গত সোমবার থেকে বিএসএফ সদস্যদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখা হচ্ছিল এবং পতাকা বৈঠকের জন্য তাগদা দেয়া হচ্ছিল। কিন্তু বিজিবি’র পাঠানো বার্তায় বিএসএফ কোন সাড়া দিচ্ছিলনা। তারা অহেতুক বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে লাশ ফেরত দিতে দেরি করেছে।

অবশেষে বৃহস্পতিবার উভয় দেশের পতাকা বৈঠক হয়। পরে তারা নিহত যুবকের লাশ ফেরত দেয়।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ভোরে শ্রীকান্ত সিংহ সহ আরও কয়েকজন অবৈধভাবে ভারতের অভ্যন্তরে বুজরুক কান্ধাল সীমান্তের ৩৫৯ নং পিলারের কাটাতার অতিক্রম করে। এসময় ভারতীয় বিএসএফ জোয়ানরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে অন্যরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও শ্রীকান্ত সিংহ গুলিবিদ্ধ হলে ঘটনাস্থল কাটাতারের পাশে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয় গ্রামবাসী কাটাতারের পাশে তার মৃতদেহ দেখতে পেয়ে পরিবারে খবর দেয়। পরে ঐদিনই ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবির পক্ষ থেকে ঘটনার প্রকৃত কারণ জানতে ও লাশ ফেরত আনতে বিজিবি ও বিএসএফ ক্যাম্প কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠক আহবান করা হলেও বিএসএফ এর পক্ষ থেকে কোন সাড়া পাওয়া যায় নাই।









Leave a reply