সেই যুবলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে নদী দখলের সত্যতা পেয়েছে প্রশাসন

|

পটুয়াখালী প্রতিনিধি
‘যুবলীগের সভাপতি শাজাহান সিরাজের বিরুদ্ধে নদী দখল করে পাকা স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ’ শিরোনামে যমুনাটিভির অনলাইনে সংবাদ প্রচারের পর তদন্তে নেমে প্রাথমিকভাবে সত্যতা পেয়েছেন উপজেলা প্রশাসন। গতকাল যমুনার সংবাদ দেখে এবং অভিযোগের ভিত্তিতে বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পীযূস চন্দ দে তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেন।

পরে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মোঃ কামরুল হাসান তার অফিসের পাঁচজন কর্মকর্তা কর্মচারীকে নিয়ে ঘটনাস্থলে যান।

কামরুল হাসান জানান, ইউএনও স্যারের নির্দেশে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিন পরিদর্শন করে কাগজপত্র দেখে, মেপে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। আগামী দুই একদিনের মধ্যে বিষয়টি আমরা লিখিত প্রতিবেদন আকারে ইউএনও স্যারের কাছে জমা দিব। তারপর সরকারী জমি উদ্ধারের ব্যপারে অভিযুক্তকে প্রথমে চিঠি দিয়ে উচ্ছেদের জন্য বলা হবে তারপরও উচ্ছেদ না করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তদন্ত টীমের সদস্যরা জমি পরিমাপ করে সিরাজের ঘরের মধ্যেও সরকারী জমি দখলের সত্যতা পেয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, সিরাজের ব্যবহৃত ওই জমির উপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে তিনি পাকা স্থাপনা নির্মাণ করেছেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply