ছাত্ররাজনীতি বন্ধ, ভর্তি পরীক্ষা স্থগিতের দাবি বুয়েট শিক্ষার্থীদের

|

আবরার হত্যার বিচার ও ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে আন্দোলনকারী বুয়েট শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধসহ ৮ দফা দাবি জানিয়েছে। এর পাশাপাশি, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) চলমান শিক্ষাবর্ষে (২০১৯-২০) ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত রাখাসহ ৯ দফা দাবি জানিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত বুয়েটের সকল ক্লাস-পরীক্ষাও বন্ধ রাখার দাবি জানান তারা।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) দুপুর সোয়া ১টায় বুয়েট শহীদ মিনারের সামনে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা এ ঘোষণা দেন। এর আগে লিখিতভাবে ৮ দফা দাবি জানান তারা।

এসব দাবির মধ্যে আছে, সিসিটিভি ফুটেজ ও জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে আবরার ফাহাদের হত্যাকারীদের প্রত্যেককে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতকরণ, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে খুনিদের ছাত্রত্ব বাতিল করা, দায়ের করা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের অধীনে স্বল্পসময়ে নিষ্পত্তি, ঘটনার পর ভিসি ৩০ ঘণ্টা পরও ঘটনাস্থলে উপস্থিত না হওয়ার বিষয়ে বিকেল পাঁচটার মধ্যে শিক্ষার্থীদের কাছে জবাবদিহিতা করা।

আরও আছে- আবাসিক হলগুলোতে র্যাগের নামে এবং ভিন্ন মতাবলম্বীদের ওপর সকল প্রকার শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন বন্ধ, শেরেবাংলা হলের প্রভোস্টকে প্রত্যাহার, মামলা চলাকালীন সকল খরচ এবং আবরারের পরিবারের সকল ক্ষতিপূরণ প্রশাসনকে বহন করা, বুয়েটে সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করার দাবিও। এছাড়া, আগামী ১৪ অক্টোবর বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। চলমান পরিস্থিতিতে সেটিও স্থগিত রাখা দাবি করেছে শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের এ দাবি ঘোষণার সময় বুয়েটের বিভিন্ন অনুষদের শিক্ষক নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। দাবি ঘোষণার পর আবরার হত্যার বিচার দাবিতে শহীদ মিনারের সামনে বিক্ষোভ করতে থাকেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

উল্লেখ্য, গত রোববার রাত ৩টার দিকে বুয়েটের শের-ই বাংলা হল থেকে ইলেকট্রিকাল এন্ড ইলেকট্রনিক্স  বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে, বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেলসহ ৯ জনকে আটক করে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে সোমবার রাতে চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন নিহত আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ্।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply