স্বামীর বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু, শোকে নববধূর আত্মহত্যা

|

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্বামী মারা যাওয়া পরদিন আত্মহত্যা করেছেন স্ত্রী। রোববার দুপুর উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের সত্যেন্দ্র দাস (বেনু) এর ছেলে নিবলু দাস (৩০) বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যাওয়া পরদিন সোমবার সকালে আত্মহত্যা করেন উনার স্ত্রী নিয়তি রানী দাস(২৮)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মাস দু’য়েক আগে নিবুল দাসের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন নিয়তি রানী দাস। রোববার উপজেলার সাচনা কাঠ বাজার সংলগ্ন শামসুল আবেদীনের এর দোকানে থাই সিলিংয়ের কাজ করতে গিয়ে অসতর্কতামূলক বিদ্যুতের তারে লাগলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয় স্বামী নিবলু দাসের।

এই ঘটনায় পরিবারের শোক কাটতে না কাটতে সোমবার সকালে ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে উড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন নিবলু দাসের স্ত্রী নিয়তী রানী দাস। পুলিশ ও স্থানীয়দের প্রাথমিক ধারণা স্বামীর শোক সইতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেচে নেন তিনি। এই ঘটনায় পুরো এলাকায় শোকে ছায়া বিরাজ করছে।

এব্যপারে রামপুর গ্রামের বাসিন্দা লিলু দাশ বলেন, এই পরিবারের দুই মাস আগে বিয়ে হয়। খুব সুখের সংসার ছিলো তাদের দুইজনকেই হাসি খুশি দেখা যেতো সব সময়। কিন্তু একটি দুঘর্টনায় গতকাল রোববার তার স্বামী মারা গেলো আর আজকে তার স্ত্রী আত্মহত্যা করলো বিষয়টি খুব দুঃখজনক।

জামালগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, স্বামী গতকাল বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গিয়েছিলো আজকে সকালে ফ্যানের সাথে ঝুলানো তার স্ত্রী লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে স্বামীর শোকে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। লাশ ময়না তদন্ত জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply