সিআইপি কার্ডের সুবিধা নিশ্চিতের দাবি ব্যবসায়ীদের

|

প্রতিবছর ১০ শতাংশ হারে বাড়লেও ঝুঁকিতে পড়ছে দেশের রফতানিখাত। তাই আরও বেশি পণ্যের বহুমুখীকরণের তাগিদ দিয়েছেন সাবেক বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমদ। আর বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি পণ্যের গুনগত মান নিশ্চিত করে বিশ্ববাজারে প্রতিযোগিতার সক্ষমতা বাড়ানোর আহ্বান জানান।

বুধবার রাজধানীতে বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি -সিআইপি কার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে তারা এসব কথা বলেন। সিআইপি কার্ড পান দাদা ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রির শেখ মোহাম্মাদ আবদুল ওয়াদুদসহ ১৮২ ব্যবসায়ী।

শিল্প ও রফতানিতে বিশেষ অবদান রাখায় প্রতি বছর রফতানিকারকদের সিআইপি কার্ড দেয়া হয়। কিন্তু সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে সময়মতো তালিকা না পাঠানোয় রফতানিকারক সে সুবিধা ভোগ করতে পারেন না।

সিআইপি কার্ডপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান দাদা ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ মো. আবদুল ওয়াদুদ বলেন, যে কোনো সম্মাননাই ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করে। সিআইপি কার্ডও তেমনই। এ কার্ডপ্রাপ্তি ব্যবসায়ী হিসেবে গৌরবের। তবে সিআইপির প্রজ্ঞাপনে কার্ডের যেসব সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয়েছে তা নিশ্চিত করা গেলে ব্যবসায়ীরা রফতানি খাতকে এগিয়ে নিতে আরও উৎসাহিত হবেন।

প্রসঙ্গত, নীতিমালা অনুযায়ী সিআইপি কার্ডধারীরা ৬ ধরনের সুযোগ-সুবিধা পান। এগুলো হচ্ছে- সচিবালয়ে ঢুকতে প্রবেশ পাস ও গাড়ির স্টিকার; জাতীয় অনুষ্ঠান ও মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ; বিমান, রেল, সড়ক ও জলপথে সরকারি যানবাহনের আসন সংরক্ষণে অগ্রাধিকারপ্রাপ্তি; ব্যবসাসংক্রান্ত কাজে বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভিসাপ্রাপ্তির জন্য সংশ্লিষ্ট দূতাবাসকে পরিচিতিপত্র (লেটার অব ইন্ট্রোডাকশন) ইস্যু করবে; সিআইপি তার স্ত্রী, পুত্র, কন্যা ও নিজের চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে কেবিন সুবিধা প্রাপ্তিতে অগ্রাধিকার পাবেন ও বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ-২ ব্যবহারের সুযোগ পাবেন। সিআইপি কার্ডের মেয়াদ ১ বছর।









Leave a reply